Category Archives: বিবিধ

সেনাবাহিনীর প্রভাব ব্যবহার করে শীর্ষ সন্ত্রাসী জোসেফ-হারিসকে মুক্ত করেন জেনারেল আজিজ!

২০০২ সালের জানুয়ারি মাসের এক বিকেল। ফারুক ভাই তার জুনিয়র সহকর্মীকে ডেকে কফি খেতে খেতে গল্প শুরু করলেন। এরা পূর্ব পরিচিতি হওয়ায় প্রায়ই সুখ দুঃখের আলাপ সালাপ করেন, যা সার্ভিসের নর্মসের বাইরে চলে যায়। ফারুক ভাই বললেন- দেখো, তুমি তো আমার সম্পর্কে জানো, এই দলটার জন্য কত কিছু করলাম, কিন্তু দুঃখের কথা কি বলবো- নিজের কাজটাই করতে পারছি না। ইলেকশনের আগে ইনারা কত কথা বললেন, এখন আর আমাকে চিনতেই চায় না!

কেনো, কি হয়েছে, ফারুক ভাই?

তুমি তো জানোই, আমরা চাইলে আইনের মধ্যে থেকেই অনেকের জন্য অনেক কিছু করতে পারি। এবারের ইলেকশনে আমার ডিউটি ছিল বিএনপি মহাসচিব মান্নান ভুইয়ার এলাকায়। ট্রুপস নিয়ে ঘাটি গাড়লাম নরসিংদিতে। প্রথমেই সাক্ষাৎ করি আওয়ামীলীগ ক্যান্ডিডেটের সাথে, এতে সবাই ধারণা করে- খুব প্রফেশনাল অফিসার, এবং আ’লীগের অনুগত! তাকে আশ্বস্ত করলাম- শান্তিপূর্ন ভোট হবে, কোনো কারচুপি কাটাকাটি সন্ত্রাসীকান্ড হবে না।

এরপরে দেখা করলাম বিএনপির হাইপাওয়ার ক্যান্ডিডেট আব্দুল মান্নান ভুইয়ার সাথে। তাকে বললাম, স্যার, আপনি কোনো চিন্তা করবেন না, আমি একদম ভালো ইলেকশন করে দেব। আপনার জন্য সাধ্যমত সবই করবো। আমি তো আপনাদেরই লোক, স্টুডেন্ট লাইফে আপনাদের ছাত্র সংগঠন করেছি। আপনি নিশ্চিত বিজয়ী হবেন। এলাকায় কোনো সন্ত্রাসীর যায়গা হবে না, আওয়ামীলীগের নাম গন্ধও থাকবে না। তিনি বললেন, কর্নেল সাহেব ধন্যবাদ, সেনাবাহিনী তো আমাদের প্রাইড, আপনারা আইনমত কাজ করলেই হবে।

পরে আরও দেখা হয়েছে, ইলেকশন নিকটবর্তী হলে একদিন সুবিধামত সময়ে ভুঁইয়া সাহেবকে বললাম, ‘স্যার, ইলেকশনে আপনার বিজয় সুনিশ্চিত, এবং আপনারা সরকারও গঠন করবেন। তবে আমার একটা বিষয় আছে- আপনাকে একটু দেখতে হবে। ছোট ভাই জোসেফ জেলে আছে, আমার মায়ের খুব আশা ওকে বাইরে আনার। আর হারিস পলাতক আছে, ও একটু ফ্রি চলাফেরা করতে চায়। আমি আশ্বাস দিচ্ছি, স্যার, ওরা আর কোনো উল্টা পাল্টা কিছু করবে না। আসলে এমপি মকবুলের উৎপাতে আমার ভাইগুলার জীবন ধংস হয়ে গেছে, লীগের গত আমলে আমার একভাই টিপুকে গুলি করে হত্যা করেছে হাজী মকবুলের ছেলে। আর এমপি মকবুল আমার বাকী দু’ভাইকে শীর্ষ সন্ত্রাসীর তালিকায় ঢুকিয়ে দিয়েছে। সব শুনে মান্না ভুইয়া বললেন, ‘দেখেন কর্নেল সাহেব, এখন আমি এর কোনো খোঁজ খবর নিতে পারব না। তাছাড়া এখন ইলেকশন নিয়ে ব্যস্ত। আগে সরকারে আসি, তারপরে খোঁজ নিয়ে করে দেয়ার চেষ্টা করবো। আপনি টেনশন করবেন না।’

ইলেকশন হয়ে গেলো, সরকার গঠন করলেন মান্নান ভুইয়া সাহেবরা, কিন্তু আমি আর উনার সাথে দেখা করতে পারিনা। প্রটোকল, নরমসের বাধা! অনেক কষ্টে সৃষ্টে হেয়ার রোডের বাসায় উনার সাথে দেখা করলাম, তিনি অবশ্য চিনলেন। কেমন আছেন, খোশ খবর করে চা বিস্কুট খাইয়ে বিদায় করে দেয় আর কি। আমি মোটামুটি জোর করেই ভাইদের কথা তুললাম। তিনি বললেন, ‘দেখুন আমি তো স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী নই, তাও আপনার জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে আমি বলে দিব। আপনি ওখানে যোগাযোগ করবেন।’ কিন্তু উনার কথায় তেমন কোনো আন্তরিকতা ছিল না।

‘চলো তোমাকে নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর বাসায় যাই, সহকর্মীকে বললেন ফারুক ভাই। দু’দিন পরে দু’জনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাড়িতে গেলেন। কথা হলো। কিন্তু মান্নান ভুইয়া কিছু বলে দিয়েছেন, এমন কোনো আভাস ইঙ্গিত পাওয়া গেলো না। উল্টো শীর্ষ সন্ত্রাসী হারিস জোসেফের জন্য কিছু করার সুযোগ এই সরকারের নাই, বলে বিদায় করে দিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। সরকারের দুই মন্ত্রী থেকে প্রত্যাখ্যাত হয়ে ফারুক তার কোর্সমেটদের সাথেও বিষয়টা শেয়ার করেন। তাদের থেকে ধীরে ধীরে সেনাবাহিনীর বিভিন্ন পর্যায়ে জানাজানি হয়।

এই ‘ফারুক ভাই’ হলেন লেঃ কর্নেল আজিজ আহমেদ, বর্তমানে লেফটেনেন্ট জেনারেল, সেনাবাহিনীর কোয়ার্টার মাস্টার জেনারেল (কিউএমজি) পদে কর্মরত। ২০০৯ সালে পিলখানা ম্যাসাকারের পরে মেজর জেনারেল আজিজকে নবগঠিত বিজিবির মহাপরিচালক পদে নিয়োগ দেন শেখ হাসিনা। পদের ব্যবহার করে আজিজ আহমেদ পুরোনো ভোল পাল্টে প্রধানমন্ত্রী হাসিনার সাংঘাতিক আস্থাভাজন হতে আত্মনিয়োগ করেন। বিশেষ করে, ২০১৪ সালের ভোটারবিহীন নির্বাচনের সময় জেনারেল আজিজ ব্যক্তিগতভাবে উৎসাহী হয়ে নিজ ফোর্স বিজিবিকে ব্যবহার করে বিরোধী দলের আন্দোলন দমনে ‘জিরো টলারেন্স’ ঘোষণা করেন, এবং ব্যাপক ধরপাকড় এবং খুনখারাবি করান। মেজর জেনারেল আজিজের কাজে খুশি হয়ে শেখ হাসিনা তাকে আস্থায় নেন, একাধিক সেশনে একান্ত আলাপ করেন। শেখ হাসিনা তার দুর্বল সরকারের জন্য আজিজকে অপরিহার্য মনে করেন। পলে লেফটেনেন্ট জেনারেল পদোন্নতি দিয়ে সেনাবাহিনীতে ফিরিয়ে এনে কোয়ার্কটার মাস্টার জেনারেল পদে বসান। সার্ভিস ছাড়াও ফারুক ভাইকে নিরাশ করেননি শেখ হাসিনা। তার অনুরোধমত, ২০১৫ সালে সুপ্রিম কোর্ট দিয়ে জোসেফের মৃত্যুদন্ড কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদন্ড করে দেন। নামে কারাগার হলেও জোসেফ গত দু’বছর পিজি এবং ঢাকা মেডিকেলে ভিআইপি কেবিনে সর্বোচ্চ সুযোগ সুবিধা দিয়ে প্রায় ফ্রি করে রাখার ব্যবস্থা করেন। অবশেষে গত সপ্তাহে রাষ্ট্রপতির ক্ষমায় বের জোসেফকে মুক্তি দিয়ে বিদেশে যাওয়ার সুযোগ দেন। আর হারিসকে বহু আগেই বাইরে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। নিজের পদ এবং সেনাবাহিনীর প্রভাব ব্যবহার করে জেনারেল আজিজ তার ভাই শীর্ষসন্ত্রাসী জোসেফকে কারামুক্ত করবেন এমন আশংকা প্রকাশ করে আগে থেকেই লেখালেখি চলছিল দেশের বিভিন্ন  মিডিয়া এবং সামাজিক মাধ্যমে। সেই আশংকার বাস্তবায়ন হলো অবশেষে!

বিমানবাহিনীর সাবেক কর্মকর্তা ওয়াদুদ আহমেদের পাঁচ পুত্রের মধ্যে সবার ছোট তোফায়েল আহমেদ জোসেফ তার বড় ভাই হারিস আহমেদের হাত ধরে রাজনীতির মাঠে পদার্পণ করেন। বড় ভাই জেনারেল আজিজ আহমদ ফারুক। নব্বইয়ের দশকে জাতীয় পার্টি ছেড়ে হারিস যোগ দিয়েছিলেন যুবলীগে। তৎকালীন ৪৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলরও হয়েছিলেন তিনি। জোসেফ তার বড় ভাইয়ের ক্যাডার বাহিনীর প্রধানের দায়িত্বপালন করেন। এরপর থেকে মোহাম্মদপুর-হাজারীবাগসহ আশপাশের এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেন জোসেফ। যোগ দেন সুব্রত বাইনের নেতৃত্বে গড়ে ওঠা আলোচিত সেভেন স্টার গ্রুপে। পুরো রাজধানী তখন সেভেন স্টার গ্রুপ ও ফাইভ স্টার গ্রুপ নামে দু’টি বাহিনী নিয়ন্ত্রণ করত। টক্কর লাগে এমপি হাজী মকবুলের সাথে। গোলাগুলিতে নিহত হয়  হারিসের বড়ভাই টিপু। মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগের সদ্য বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক মিজানের বড়ভাই মোস্তফাকে হত্যা করে ১৯৯৭ সালে গ্রেফতার হয় জোসেফ। ২০০৪ সালে জোসেফকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছিল ঢাকার জজ আদালত।  হাই কোর্ট ওই রায় বহাল রাখে। জোসেফ ২০ বছর আগে যখন গ্রেপ্তার হয়েছিলেন, তার নামে তখন ঢাকার বিভিন্ন থানায় চাঁদাবাজি, খুন, অবৈধ অস্ত্র বহনের অভিযোগে অন্তত ১১টি মামলা ছিল। এভাবেই শীর্ষ সন্ত্রাসীদের তালিকায় নাম উঠে আসে জোসেফের।

চলতি মাসে সেনাপ্রধান নিয়োগের সিস্টেমে জেনারেল আজিজ শেখ হাসিনার অন্যতম ক্যান্ডিডেট হলেও শুভাকাঙ্খিরা পরামর্শ দিয়েছেন, আজিজকে সেনাপ্রধান করে সুবিধা হবে না, কেননা জেনারেল আজিজ সেনাবাহিনীতে সবচেয়ে আনপপুলার লোক। বিশেষ করে, জোড়া শীর্ষসন্ত্রাসীর জেষ্ঠ্য সহোদরকে সেনাবাহিনী প্রধান করা হলে জনমনে দারুণ বিরুপ মনোভাব হবে, তাছাড়া সেনাবাহিনীর সদস্যরা অনেকেই এই নিয়োগ মানতেও চাইবে না। আজিজ ইতোমধ্যে তার চাহিদা সব আদায় করে নিয়েছে। এরপরে তিনি যেকোনো অঘটন ঘটাতে পারেন নিশ্চিন্তে, তাঁর সেই অভ্যাস আছে।

 

ধানের শীষে ভোট দিয়ে দেখালেন তালুকদার খালেক!

খুলনা সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক ভোট দিয়ে ব্যালট পেপার ক্যামেরার সামনে তুলে ধরেন। টিভিতে প্রচারিত এই ছবিতে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে সিলটি পড়েছে ধানের শীষ প্রতীকে !
ক্যামনে কি…?
তিনি কি দিশাহারা ছিলেন? নাকি নৌকাকে বর্জন করেছিলেন? ধানের শীষে ভোট দেয়ার অপরাধে তার পদ থাকবে তো? আবার পার্টি থেকে বাহিস্কার হবেন না তো?

কোটাবিরোধী রাজাকারের বাচ্চাদের উপর আমার বমি করে দিতে ইচ্ছা হ​য় – জাফর ইকবাল

আমি শেষবার এই কথাটি শুনেছিলাম ১৯৭১ সালের সেপ্টেম্বর কিংবা অক্টোবর মাসে। তাড়া খাওয়া পশুর মতো দেশের নানা জায়গা ঘুরে শেষ পর্যন্ত ঢাকা এসে আশ্রয় নিয়েছি।

তখন দেশের অন্য যে কোনো জায়গায় যে কোনো সময় পাকিস্তান মিলিটারি যে কোনো মানুষকে অবলীলায় মেরে ফেলতে পারত। সেই হিসেবে ঢাকা শহর খানিকটা নিরাপদ।

দেশটা ঠিকমতো চলছে দেখানোর জন্য এখানে প্রকাশ্যে একধরনের শান্তিপূর্ণ অবস্থা দেখানো হয়। তারপরও কমবয়সীদের অনেক বিপদ, তারা রাস্তাঘাটে বেশি বের হয় না। মাথায় লম্বা চুল থাকা রীতিমতো বিপজ্জনক। একদিন আমি বিপদ কমানোর জন্য নীলক্ষেতে একটা নাপিতের দোকানে চুল কাটাচ্ছি।

তখন হঠাৎ করে সেখানে একটা মানুষ এসে ঢুকল এবং আমার পাশের খালি চেয়ারটায় খুব আয়েশ করে বসে নাপিতের সঙ্গে আলাপ জুড়ে দিল। আলাপের বিষয়বস্তু সে নিজে, এখন সে কী করে তার কতরকম সুযোগ-সুবিধা এবং ক্ষমতা ইত্যাদি ইত্যাদি। নাপিত এক সময় মানুষটিকে জিজ্ঞেস করল, ‘আপনি কী করেন?’ মানুষটি দাঁত বের করে হেসে বলল, ‘আমি রাজাকার।’
মানুষটি খানিকক্ষণ গালগল্প করে যেভাবে এসেছিল সেভাবে চলে গেল। নাপিত তখন একটা লম্বা নিঃশ্বাস ফেলে আমাকে বলল, ‘হারামজাদা রাজাকারের ভাবটা দেখেছেন? শালার ব্যাটার কথা শুনলে মনে হয় দেশটা তার বাপের সম্পত্তি!’

১৯৭১ সালে রাজাকারদের সম্পর্কে এর চাইতে সম্মানজনক কোনো বিশেষণ ব্যবহার করা হয়েছে বলে আমি মনে করতে পারি না। রাজাকার কী বস্তু সে ব্যাপারে এখনও যাদের সন্দেহ আছে তাদের আমি আমাদের মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে যেতে বলব। সেখানে এক জায়গায় এক রাজাকারের অন্য এক রাজাকারের কাছে লেখা একটা চিঠি বড় করে টানানো আছে। সেখানে একজন পাকিস্তানি মেজরের নাম উল্লেখ করে বলা আছে, মেজর সাহেব ভালো ‘মাল’ পছন্দ করেন, তাই প্রত্যেকদিন তাকে যেন একটি করে মেয়েকে ধরে এনে দেয়া হয়!

আমরা যারা ১৯৭১ দেখেছি তাদের কাছে রাজাকারদের চাইতে ঘৃণিত কোনো প্রাণী আছে বলে মনে করতে পারি না। রাজাকাররা নিজেরাও সেটা জানত, তাই তারাও যে খুব বড় গলায় গর্ব করে বুকে থাবা দিয়ে ‘আমি রাজাকার’ বলে বেড়িয়েছে সেরকম মনে করতে পারি না।

তাই ২০১৮ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের কোটাবিরোধী আন্দোলনের ফলাফল হিসেবে যখন দেখি একজন ছাত্র নিজের বুকে ‘আমি রাজাকার’ কথাটি লিখে গর্বভরে দাঁড়িয়ে আছে, আমি সেটি বিশ্বাস করতে পারিনি। মাথায় আগুন ধরে যাওয়া বলে একটা কথা আছে, এই কথাটির প্রকৃত অর্থ কী আমি এই ছবিটি দেখে প্রথমবার সেটি অনুভব করেছি।

২.

ঢাকা শহরের মানুষকে জিম্মি করে আন্দোলন করার জন্য আমি যথেষ্ট বিরক্ত হয়ে সপ্তাহ দুয়েক আগে একটা লেখা লিখেছিলাম (সেই সময়ে আমার মেয়ে হাসপাতালে ছিল তাই ঢাকা শহরকে জিম্মি করে ফেললে হাসপাতালে রোগীদের কী ধরনের কষ্ট হয় আমি নিজে সেটা জানতে পেরেছি)। সেই লেখার কারণে অনেক ছাত্রছাত্রী প্রতিবাদ করে আমার কাছে লম্বা লম্বা মেইল পাঠিয়েছিল।

আমার লেখালেখির প্রতিক্রিয়া আমি কখনও পড়ি না, আমার ধারণা তাহলে এক সময়ে নিজের অজান্তেই পাঠকদের প্রশংসাসূচক বাক্যের জন্য লিখতে শুরু করব। পাঠকরা আমার লেখা পড়ে কী ভাবছে আমি যদি সেটি না জানি তাহলে নিজের মতো করে লিখতে পারব। কাজেই কোটাবিরোধী আন্দোলনের কর্মীদের লেখা সব মেইল আমি না পড়েই ফেলে দিয়েছি, তারা কী লিখেছে আমি জানি না।

তবে আমার সেই লেখাটি আমি যখন লিখেছিলাম তখন আমি জানতাম না এই বহুল আলোচিত কোটাবিরোধী আন্দোলনের অন্য একটি সাফল্য হচ্ছে বাংলাদেশের মাটিতে তরুণ সম্প্রদায়কে রাজাকার হিসেবে অহংকার করতে শেখান। তাহলে অবশ্যই আমি ঢাকা শহরকে জিম্মি করার মতো সাধারণ একটা বিষয় নিয়ে লিখতাম না। একটি সরকারি চাকরি পাওয়ার জন্য বাংলাদেশে জন্ম নেয়া তরুণদের পচেগলে পূতিগন্ধময় রাজাকার নামক আবর্জনায় পরিণত হয়ে যাওয়া নিয়ে আমার ঘৃণাটি প্রকাশ করতাম।

কিন্তু প্রশ্ন হল বিষয়টি আমার জানতে এত দেরি হল কেন? আমি ফেসবুক করি না, সামাজিক নেটওয়ার্কে সময় নষ্ট করি না সত্য; কিন্তু আমি তো খুবই সম্ভ্রান্ত একটা ইংরেজি দৈনিক নিয়মিত পড়ি, ইন্টারনেটে খুবই জনপ্রিয় নিউজ পোর্টালে দিনে কয়েকবার চোখ বুলাই। তাহলে কোটাবিরোধী আন্দোলন করে যে বাংলাদেশের মাটিতে রাজাকারের পুনর্জন্ম হয়েছে, এ দেশের তরুণরা নিজেদের রাজাকার হিসেবে পরিচয় দিয়ে গর্ব করতে শিখেছে আমাদের সংবাদমাধ্যম সেই খবরটি আমাদের কেন জানাল না? তারা যে সামাজিক নেটওয়ার্কের কোনো তথ্য প্রকাশ করে না তা তো নয়। আমাকে একটা বিভ্রান্ত তরুণ খুন করতে গিয়ে ব্যর্থ হওয়ার পর ফেসবুকে আফসোস করে কিংবা আক্রোশ প্রকাশ করে যে উক্তিগুলো লেখা হয়েছে, সেগুলো গুরুত্বপূর্ণ পত্রিকায় বিশাল বড় করে ছাপানো হয়েছে সেটা আমি নিজের চোখে দেখেছি। এখানে বরং একটা উল্টো ব্যাপার ঘটেছে, কোটাবিরোধী আন্দোলনটি যে একটি ‘অন্যায়ের বিরুদ্ধে ন্যায়ের আন্দোলন’, তার ওপর আমি বুদ্ধিজীবীদের বড় বড় লেখা দেখেছি। অর্থাৎ সংবাদমাধ্যম এই আন্দোলনটিকে একটি ইতিবাচক আন্দোলন হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছে। এ আন্দোলনের কারণে যে মুক্তিযোদ্ধাদের অসম্মান হয়েছে এবং রাজাকারদের পুনর্জন্ম হয়েছে তাতে এ দেশের সম্ভ্রান্ত দৈনিক পত্রিকার কিছু আসে যায় না। কেন? এই প্রশ্নের উত্তর আমাকে কে দেবে?

৩.

প্রথম যখন কোটা সংস্কারের আন্দোলন শুরু হয় এবং সাংবাদিকরা আমার বক্তব্য জানার আগ্রহ দেখায়, তখন আমি সংস্কারের পক্ষে মত দিয়েছি এবং সঙ্গে সঙ্গে মনে করিয়ে দিয়েছি কোটার বড় একটি অংশ মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানদের জন্য, কাজেই কোটার বিরুদ্ধে কথা বলার সময় খুব সাবধানে কথা বলতে হবে। কোনোভাবে যেন আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি অসম্মান দেখানো না হয়। আমাদের দেশের মুক্তিযোদ্ধাদের আমরা কিছুই দিতে পারিনি, এখন যদি জীবনের শেষ মুহূর্তে তাদের প্রতি অসম্মান দেখাই সেটা কোনোভাবে মেনে নেয়া যাবে না।

আমি ঠিক যে বিষয়টি নিয়ে শঙ্কিত ছিলাম সেটাই ঘটেছে। মুক্তিযোদ্ধাদের চরমভাবে অসম্মান করেই ঘটনা শেষ হয়ে যায়নি, বাংলাদেশের ইতিহাসে যেটা আগে কখনও ঘটেনি সেটাও ঘটেছে- রাজাকার শব্দটিকে সম্মানিত করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাদের অসম্মান করে এবং রাজাকারদের জন্য ভালোবাসা দেখিয়ে যে কথাগুলো উচ্চারিত হয়েছে সেগুলো এত অশালীন যে আমার পক্ষে মুখ ফুটে উচ্চারণ করা সম্ভব না। যদি কারও কৌতূহল থাকে ইন্টারনেটে ঘাঁটাঘাঁটি করে সেগুলো বের করে দেখতে পারেন।

আমি কখনোই বিশ্বাস করব না যে, এই আন্দোলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ছেলেমেয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি অসম্মান দেখিয়েছে, রাজাকারদের জন্য ভালোবাসা দেখিয়েছে। সেরকম কিছু ঘটলে আমাদের সবার গলায় দড়ি দিতে হবে। কিন্তু যেটুকু ঘটেছে সেটাও তো কোনোভাবে ঘটার কথা নয়। যে বিষয়টি আমাকে ক্ষুব্ধ করেছে সেটি হচ্ছে সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের কেউ বিষয়টার প্রতিবাদ করেনি। যারা আন্দোলন করছে তাদের কেউ বলেনি আমরা কখনোই মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি অসম্মান দেখাইনি, রাজাকারদের জন্য ভালোবাসা দেখাইনি, যারা দেখিয়েছে তাদের জন্য আমাদের ভেতরে ঘৃণা ছাড়া আর কিছু নেই।

আমি বহুদিন থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে আছি, অনেক আন্দোলন দেখেছি। সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের আন্দোলন সব সময়ই ন্যায়সঙ্গত আন্দোলন হয়, যদি আন্দোলনটি দানা বাঁধতে শুরু করে তখন রাজনৈতিক দলগুলো সেই আন্দোলনটি নিজেদের কূটকৌশলে ব্যবহার করে ‘হাইজ্যাক’ করে নেয়। সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা যদি যথেষ্ট বুদ্ধিমান হয়, তাহলে আন্দোলনটির নেতৃত্ব নিজেদের হাতে রাখতে পারে। যদি তারা বুদ্ধিমান না হয়, তখন নেতৃত্ব হাতছাড়া হয়ে যায়। এ আন্দোলনটির বেলায় কী ঘটেছে আমি জানি না। আমার একজন সহকর্মী একাত্তর টেলিভিশনে এই আন্দোলনের একজন নেতার সাক্ষাৎকার দেখিয়েছে- সেটা দেখে হতাশ হওয়ার যথেষ্ট কারণ আছে। রাজাকারপ্রীতির বিষয়টা তখন খানিকটা বোঝা যায়।

আমরা যারা ১৯৭১ দেখেছি তাদের জন্য মুক্তিযুদ্ধ ব্যাপারটি একটি তীব্র আবেগের ব্যাপার। মুক্তিযোদ্ধার অসম্মান কিংবা রাজাকারের পুনর্বাসন আমাদের কাছে শুধু একটি ঘটনা নয়, এটি আমাদের কাছে জাতীয় বিপর্যয়। নতুন প্রজন্ম কখনও সেটি আমাদের মতো করে অনুভব করতে পারবে কী না আমরা জানি না। যদি নিজের একটা চাকরির জন্য তারা মুক্তিযোদ্ধাদের অসম্মান করে, রাজাকারদের সঙ্গে একাত্ম হয়ে যায়, সেটি আমরা কখনও মেনে নেব না।

৪.

আমি যতদূর জানি বেশ অনেকদিন থেকে এই কোটাবিরোধী আন্দোলন চলে আসছিল; কিন্তু যে কারণেই হোক আন্দোলনটি সেভাবে দানা বেঁধে ওঠেনি। তারপর হঠাৎ করে এক রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা রণক্ষেত্রে রূপান্তরিত হল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলরের বাসাটি গুঁড়ো গুঁড়ো করে দেয়া হল এবং দেখতে দেখতে আন্দোলনটি দানা বেঁধে উঠল। বিশ্ববিদ্যালয়ের যে ছাত্রছাত্রীরা জন্মেও এই চাকরির পেছনে দৌড়াবে না, আমি দেখলাম তারাও হঠাৎ করে এই কোটাবিরোধী আন্দোলনে যোগ দেয়ার জন্য ছুটে গেল!

যারা বিষয়টা লক্ষ করেছেন তারা সবাই কারণটা অনুমান করতে পারেন। এ আন্দোলনটা দানা বেঁধে ওঠার অন্যতম কারণ হচ্ছে ছাত্রলীগের দৌরাত্ম্য (এখন হয়তো অনেকের মনে নেই, বিএনপি-জামায়াত আমলে দৌরাত্ম্যটি ছিল ছাত্রদল এবং শিবিরের)। মোটামুটি বলা যেতে পারে এ আন্দোলনটা ছিল ছাত্রলীগের দৌরাত্ম্যরে বিরুদ্ধে একটা প্রতিবাদ। বছর কয়েক আগে আমি নিজের চোখে ‘জয় বাংলা’ এবং ‘জয় বঙ্গবন্ধু’ স্লোগান দিয়ে ছাত্রলীগের মাস্তানদের শিক্ষকদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়তে দেখেছি। কাজেই তারা ছাত্রছাত্রীদের ওপর কী পরিমাণ নির্যাতন করতে পারে সেটা অনুমান করা কঠিন কিছু নয়। কাজেই পুলিশের সঙ্গে সঙ্গে যখন ছাত্রলীগের কর্মীরাও সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছে, আন্দোলনটা দেখতে দেখতে একটা জনপ্রিয় আন্দোলনে পরিণত হয়েছে। ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে একসঙ্গে দাঁড়ানোর সুযোগ এর আগে কখনও আসেনি।

কিন্তু এরপরের অংশটি বেদনাদায়ক। ছাত্রলীগের ওপর যে বিতৃষ্ণাটুকু ছিল সেটি খুবই কৌশলে মুক্তিযোদ্ধাদের অসম্মান করার কাজে ব্যবহার করা হল এবং দেখতে দেখতে সেটি রাজাকারদের প্রতিষ্ঠা করার কাজে লাগিয়ে দেয়া হল।

আমার দুঃখ শুধু এক জায়গায়, হাজার হাজার ছাত্রছাত্রীর কেউ এর প্রতিবাদ করে কিছু করল না, কেউ কিছু বলল না!

৫.

যারা বিসিএস ক্যাডারে চাকরি পায় তাদের ট্রেনিং দেয়ার জন্য সাভারে বিশাল একটা প্রতিষ্ঠান আছে। সেই প্রতিষ্ঠানটি মাঝে মাঝেই আমাকে আমন্ত্রণ জানায় বিসিএস ক্যাডারদের উদ্দেশে কিছু বলার জন্য। আমি সুযোগ পেলে সেখানে যাই এবং এই তরুণ প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলি। বেশির ভাগ কথা হয় দেশ নিয়ে, মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে। কথা বলা শেষ হলে অবধারিতভাবে ছবি তোলা শুরু হয়, আমি আগ্রহ নিয়ে সবার সঙ্গে ছবি তুলি।

কোটাবিরোধী এ আন্দোলনটি ছিল আসলে চাকরি পাওয়ার আন্দোলন। এ সফল আন্দোলনের পর আন্দোলনের নেতানেত্রীদের কেউ কেউ নিশ্চয়ই চাকরি পাবে এবং তাদের কেউ কেউ নিশ্চয়ই সাভারে ট্রেনিং নিতে যাবে। এটা এমন কিছু অস্বাভাবিক নয় যে, হয়তো আমি তাদের উদ্দেশে কিছু কথা বলব।

কথা শেষ হলে কোনো একজন নেতা হয়তো এসে আমাকে পরিচয় দিয়ে বলবে, আমি ২০১৮ সালে কোটাবিরোধী আন্দোলন করেছিলাম, খবরের কাগজে আমার ছবি ছাপা হয়েছিল, আমার বুকে লেখা ছিল ‘আমি রাজাকার’।

তখন আমি অবধারিতভাবে গলায় আঙুল দিয়ে তার ওপর হড় হড় করে বমি করে দেব।

মুহম্মদ জাফর ইকবাল : লেখক; অধ্যাপক, শাবিপ্রবি

মাহাথির, এবং বাংলাদেশী ওস্তাদ ও জিলাপীর গল্প

 

মাহাথির মোহাম্মদ সেদিন ঘুরতে ঘুরতে গিয়ে বসেছিলেন কুয়ালালামপুরের এক বাঙালি রেস্টুরেন্টে। শুনেছেন রেস্টুরেন্টটিতে “জিলাপী” নামের এক ধরনের মিষ্টি জাতীয় খাবার পাওয়া যায়। তাই খেতে এসেছিলেন সেখানে। তাঁর কাছ থেকে অর্ডার নিচ্ছিল এক বাংলাদেশি তরুণ।
ক্যাশ থেকে ম্যানেজার হাঁক দিলেন, ” আক্কাস, শুইনা যা….”
তরুণ টি বললো, ” আহি ওস্তাদ…! ”
“ওস্তাদ” শব্দটি মাহাথির সাহেবের খুব পছন্দ হয়ে গেল। তরুণটিকে জিজ্ঞেস করলেন ” What is Ostad? ”
তরুণ আক্কাস তাঁকে অনেক ভাবে “ওস্তাদ” শব্দের মানে বোঝালো, শেষে উদাহরণ দিলো “এই যে মনে করেন আপনি টানা ২২ বছর মালয়েশিয়ার ওস্তাদ ছিলেন, এখন আর নাই….”
মাহাথিরের মনটা একটু খারাপ হলো….২০০৩ এ স্বেচ্ছায় নিজের সাম্রাজ্যের ওস্তাদগিরি ছেড়ে দিয়েছিলেন, এখন একটু আফসোসও হচ্ছে!…. বয়সটাও অনেক হয়ে গেছে……
মনের ভাব বুঝতে পারলো রেস্টুরেন্ট বয় আক্কাস বললো, ” স্যার, আমাদের দেশে আরেকটা কথা আছে- ওস্তাদের মাইর শেষ রাইতে! ”
“মানে?”
আক্কাস আবার বললো, “কিছু মনে কইরেন না স্যার! মনে করেন মানুষের পুরাটা জীবন সমান একদিন আর এক রাইত। সেই হিসাবে আপনার ৯০ বছর বয়স মানে জীবনের প্রায় শেষ ভাগ,…. মানে শেষ রাইত। আপনার শিষ্যরা এখন আপনারে আগের মতো মানে না। এই অবস্থায় যদি আপনি ইলেকশন কইরা জিততে পারেন তাহলে বলা যাবে, ওস্তাদের মাইর শেষ রাইতে!
হা করে তাকিয়ে রইলেন মাহাথির! এই তরুণ হঠাৎই তাঁর সুপ্ত বেদনাকে জাগিয়ে তুলেছে! সত্যিই তো, তাঁর নিজ হাতে গড়া লোকগুলো আজ তাঁকে খুব বেশি পাত্তা দিচ্ছে না! এদেরকে উপযুক্ত শিক্ষা দিতে হবে! শিক্ষা দিতে হলে ইলেকশন করতে হবে, জিততে হবে। কিন্তু কী করে সম্ভব….এই বয়সে…..?
” কী করে সম্ভব?” মাহাথির বললেন।
ততক্ষণে জিলাপী চলে এসেছে।
আক্কাস বললো, “স্যার, এই জিলাপির দিকে তাকাইয়া দেখেন।…. দেখেন অনেকগুলি প্যাঁচ! এর কারিগরকে ডেকে দেখেন, সেও এই প্যাঁচ খুলতে পারবে না!
আপনারও এই জিলাপির মতো প্যাঁচ দিতে হবে, যা আপনার বিরোধীরা কেন, আপনিও যেন খুলতে না পারেন! আমাদের দেশে পলিটিশিয়ানরা কিন্তু এ ব্যাপারে আদর্শ! ”
মাহাথির জিলাপ নামক বাংলা খাবারটির দিকে একদৃষ্টে তাকিয়ে রইলেন।
সেদিন চলে আসার সময় তিনি আক্কাসকে ৫ রিংগিত টিপস দিয়েছিলেন।

আবারো ওস্তাদ হওয়ার মিশনে নামলেন মাহাথির। তাঁর সামনে মডেল হলো জিলাপী আর বাংলাদেশি পলিটিশিয়ান!
শত্রুকে মিত্র করলেন, মিত্রকে করলেন শত্রু!
তাঁর নিজের দলের প্রধানমন্ত্রীর (নাজিব রাজাক) বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তুললেন তিনি!
যে দল তাঁর আদর্শ ও দেখানো পথে চলে, সেই দলকেই পরিত্যাগ করলেন মাহাথির!
জিলাপীর প্যাঁচের এখানেই শেষ নয়!
যোগ দিলেন সেই দলে যে দলের প্রধান (আনোয়ার ইব্রাহীম)! তাঁরই ইশারায় জেলে আছেন বলে জোর গুঞ্জণ আছে!
আবার প্রধান সহযোগী করলেন সেই আনোয়ার ইব্রাহিম এর স্ত্রীকে!
জোটে নিলেন সে সব বিরোধী দলগুলোকে যারা সারাজীবন মাহাথিরের রাজনীতির বিরোধিতা করেছিল!
বাংলাদেশে বলা হয়ে থাকে, রাজনীতিতে শেষ কথা বলতে কিছু নেই…..ব্যাপারটা তিনি জানতে পেরেছেন!
নাজিব রাজাক বিচলিত!
মাহাথির তাঁর চিকন ফ্রেমের চশমা মুছতে মুছতে ভাবছেন, কেমন হলো তাঁর ” জিলাপীর প্যাঁচ”!

ফলাফলঃ মাহাথির আবারও মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত!
৯২ বছর বয়সে তিনি আবারও প্রমাণ করলেন তিনিই ওস্তাদ এবং ওস্তাদের মাইর শেষ রাইতে!
Mahathir has become the king again!
But who is the king maker?….. নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের আক্কাস।….. এবং বাংলার জিলাপী!

[বিঃদ্রঃ শপথ গ্রহণের পর মাহাথির সাহেব সবাইকে বাংলাদেশি সেই রেস্টুরেণ্টের জিলাপী খাইয়েছেন বলে শোনা যাচ্ছে।
রেস্টুরেন্ট বয় আক্কাসকে তিনি “নেপথ্য রাজনৈতিক উপদেষ্টা” করতে যাচ্ছেন!
……..কিন্তু আক্কাসের মন খারাপ! গ্রামের বাড়ি থেকে খবর এসেছে তার ৭০ বছর বয়স্ক বাবা আবার বিয়ে করতে যাচ্ছেন!
যুক্তি হিসেবে তিনি বলছেন, মাহাথির যদি ৯২ বছর বয়সে পুরো দেশ সামলাতে পারেন, তাহলে তিনি ৭০ বছর বয়সে একটা নতুন বউ সামলাতে পারবেন না কেন?!]

/ফেসবুক থেকে সংগৃহীত।

ফারজানা রুপা আর সিদ্দিকী নাজমুলের লন্ডন কেলেঙ্কারি

ব্রিটেনের পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা করার হুমকি দিয়ে ফেঁসে গেছে ৭১ টিভির সাংবাদিক নামধারী দুর্বৃত্ত ফারজানা রুপা। লন্ডনে তার অপকর্মের বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ দলিল এখন লন্ডন মেট পুলিশের হাতে। ব্যাংক ডাকাত সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ১৭ এপ্রিল লন্ডন সফরে গিয়ে নানা কেলেঙ্কারির জন্ম দেয় রুপা। স্বামী শাকিলকে ঢাকায় রেখে লন্ডনে গিয়ে প্রতি রাতেই ছাত্রলীগের সাবেক নেতা সিদ্দিকী নাজমুলের সঙ্গে হারিয়ে যেত রুপা। নাজমুল-রুপার প্রতিদিন রাতের মদ-মাস্তিতে মাঝে মাঝে অংশ নিত শেখ হাসিনার ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি আশরাফুল আলম খোকন। সাংবাদিক পরিচয়ের আড়ালে রুপা নাজমুলের সঙ্গে উপভোগ করলেও লন্ডন সফরটি এবার ভালো কাটেনি শেখ হাসিনার। একদিকে শেখ হাসিনার গুম খুন নিয়ে ব্রিটেনের নিউজ চ্যানেল ফোর এর রিপোর্ট অপরদিকে ব্যানার ফেস্টুন নিয়ে প্রতিদিন যুক্তরাজ্য বিএনপি এবং প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রতিবাদ বিক্ষোভের ফলে সাঙ্গপাঙ্গসহ প্রায় বন্দি জীবন কাটিয়েছেন শেখ হাসিনা। ফলে জনগণের দৃষ্টি ভিন্নখাতে নিতে সাংবাদিক পরিচয়ে একটি ‘পরিস্থিতি’ তৈরী করার জন্য ফারজানা রুপাকে সেন্ট্রাল লন্ডন থেকে পূর্ব লন্ডনে বিশেষ এসাইনমেন্ট দিয়ে পাঠান শেখ হাসিনা এবং শাহরিয়ার আলম। ‘পরিস্থিতি’ তৈরী করতে রুপা পূর্ব লন্ডনে ব্রিটিশ-বাংলাদেশী অধ্যুষিত ইস্ট লন্ডন মসজিদ যার অপর নাম লন্ডন মুসলিম সেন্টার (এলএমসি) কে টার্গেট করে। পরিকল্পনা মতো ১৯ এপ্রিল সেন্ট্রাল লন্ডন থেকে রওয়ানা দিয়ে পূর্ব লন্ডনের এলএমসি রওয়ানা দেয় ফারজানা রুপা। রুপার পাশে লন্ডনে তার বিশেষ সঙ্গী সিদ্দিকী নাজমুল।
পূর্ব লন্ডনের এলএমসি’র উদ্দেশ্যে যাত্রাপথে অলগেট ইষ্টে একটি পাব-এ (মদের দোকান) ঢুকে রুপা, নাজমুল এবং আরো একজন। মদ খেয়ে রুপা প্রায় বেসামাল। বেসামাল অবস্থায় এলএমসি’র পাশে একটি গলিতে মোড়ে দাঁড়ায় ফারজানা রুপা। ড্রাগ এডিক্টদের কাছে এই গলিটি বেশ পরিচিতি। এখানে প্রায়শই এক-দু’জন ড্র্যাগ এডিক্ট নিজেদের মতো করে দাঁড়িয়ে থাকে। একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন,বেসামাল রুপাকে দেখে একজন ড্রাগ এডিক্ট এগিয়ে আসে। নিজেদের লোক মনে করে রুপাকে ড্রাগ অফার করে। এতে ক্ষেপে যায় বেসামাল রুপা। ড্রাগ এডিক্টের সঙ্গে বেসামাল ফারজানা বিতর্কে জড়িয়ে পড়ে। ঠিক এই সময় একটি মোটরসাইকেলে এসে দুই যুবক রুপার ক্যামেরা নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করে রুপা। খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ এসে ওই ড্রাগ এডিক্ট ব্যাক্তিকে গ্রেফতার করে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করার পরই বেরিয়ে আসে রুপার ক্যামেরা চুরি নাটকের রহস্য। এরপর এ ঘটনাকে নিজের কৃতিত্ব জাহির করতে রুপা নানাভাবে রংমাখিয়ে ঢাকায় প্রচার করে। এমনকি লন্ডন থেকে ঢাকায় ৭১ টিভিতে লাইভ দেয়ার সময় তার ক্যামেরা ছিনতাইয়ের ঘটনায় ব্রিটিশ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা করারও হুমকি দেয়।

একজন ড্রাগ এডিক্টের সঙ্গে বেসামাল রুপা ঝগড়া বাধিয়ে ‘এলএমসি তথা ইস্ট লন্ডন মসজিদ’ কেন্দ্রিক কোনো ‘পরিস্থিতি’ তৈরী করার ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নে ব্যর্থ হয়ে নতুন ‘সমীকরণ’ তৈরির মিশনে নামে। শেখ হাসিনা ২২ এপ্রিল ব্রিটেন ত্যাগ করলেও সিদ্দিকী নাজমুলের সঙ্গে লন্ডনে থেকে যায় বহুগামী ফারজানা রুপা। মদ-মাস্তি-রঙ্গ-সঙ্গের পাশাপাশি শেখ হাসিনাকে খুশি করতে চলতে থাকে নানা ‘সমীকরণ’ তৈরির ষড়যন্ত্র। তবে বাঁধসাধে বেরসিক ব্রিটিশ পুলিশের তৎপরতা। লন্ডনে আওয়ামী লীগের আনোয়ারুজ্জামান -সিদ্দিকী নাজমুল গ্রূপ বিরোধী এক নেতা জানিয়েছেন, কিছু বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ব্রিটেনের পুলিশ রুপাকে খুঁজছে এই তথ্যটি লন্ডনে শেখ হাসিনা পরিবারের একটি সূত্র থেকে রুপার গোচরে আনা হয়। একইসঙ্গে সিদিকী নাজমুলের সঙ্গেও পুলিশ কথা বলতে চায় বলে জানানো হয়। এই খবর জানার কয়েকঘন্টার মধ্যেই টিকেট পরিবর্তন করে গোপনে লন্ডন ত্যাগ করে ফারজানা রুপা এবং সিদ্দিকী নাজমুল। তবে লন্ডন থাকার সময় ‘ফারজানা রুপা’র কার্যক্রমের সিসিটিভি ফুটেজ পুলিশ সংগ্রহ করেছে। পুলিশের একটি সূত্র বলেছে, যেহেতু রুপা ব্রিটেনের পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা করার হুমকি দিয়েছে সেহেতু নিজেদের স্বার্থেই পুলিশ লন্ডনে রুপার কার্যক্রমের সিসিটিভি ফুটেজে উদ্ধার করে রেখেছে। এইসব ফুটেজে রুপার অপকর্মের নানাচিত্রের পাশাপাশি সিদ্দিকী নাজমুলের সঙ্গে রঙ্গলীলার ফুটেজও ধরা পড়েছে।

মার্কিন রাষ্ট্রদূতের বাসায় আ.লীগ নেতাদের বৈঠক, পাঁচ মিনিট একান্তে কাদের-বার্নিকাট!

পাঁচ মিনিট একান্তে কাদের-বার্নিকাট ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্সিয়া বার্নিক্যটের বাসায় বৈঠক করেছেন আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধি দল। সোমবার রাতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পদাক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলটি এতে অংশ নেন।

বৈঠকে আগামী জাতীয় নির্বাচন, সিটি করপোরেশন নির্বাচন, যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক পরিস্থিতি, আঞ্চলিক রাজনীতি ও রোহিঙ্গা ইস্যূ নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে জানা গেছে।

তবে আওয়ামী লীগের নেতারা এটিকে সৌজন্যমূলক নৈশভোজ বলে দাবী করছেন। বৈঠকে উপস্থিত একাধিক সূত্র জানায়, নৈশভোজ শেষে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে মার্নিকাটের পাঁচ মিনিট একান্ত বৈঠক হয়।

বৈঠকে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ছাড়াও উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য অ্যাম্বাসেডর মোঃ জমির, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রাজ্জাক, ফারুক খান, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আন্তর্জাতিক সম্পাদক শাম্মী আহমেদ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল এবং মার্কিন দূতাবাসের পলিটিকাল অ্যাফেয়াস সেকেন্ড সেক্রেটারি কাজী রহমান দস্তগীর ও জ্যাকব জে লেভিনসহ দূতাবাসের উচ্চ পদস্ত কর্মকর্তার উপস্থিত ছিলেন।

অবশ্য হঠাৎ করে আওয়ামীলীগ মার্কিন দূতাবাস মুখি কেনো হলো এ নিয়ে চলছে নানা জল্পনা কল্পনা। কেননা অতীতে ওবায়দুলের পূর্বসুরি সাধারন সম্পাদক সৈয়দ আশরাফ মার্কিন এক জুনিয়ার  মন্ত্রীকে ‘দুই আনার মন্ত্রী’ এবং মার্কিন রাষ্ট্রদূত ডান মজিনাকে ‘কাজের মেয়ে মর্জিনা’ ডেকে কূটনৈতিক ‍ বৈরিতার সূচনা করেছিলেন। হঠাৎ করে আ’লীগের এমন উল্টাস্রোত নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে।

 

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ারের বালখিল্যতার জেরে বাংলাদেশ যুক্তরাজ্যের কূটনৈতিক সংকটের আশংকা!

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পাসপোর্ট জমা করা সংক্রান্তে ভুলে ভরা বৃটিশ হোম অফিসের কথিত চিঠি নিয়ে কূটনৈতিক অঙ্গনে রীতিমতো তোলপাড় চলছে। ঢাকা, লন্ডনসহ সর্বত্রই এখন  আলোচনায় হোম অফিসের চিঠি! চিঠিতে বাংলাদেশ হাই কমিশনের বদলে ‘বাংলাদেশি অ্যাম্বাসি, ৪টি পাসপোর্টকে ‘অ্যা পাসপোর্ট’ বলে উল্লেখ করা ইত্যাদি মোটা দাগে অন্তত অর্ধডজন ভুল রয়েছে।

ভুলের বিষয়ে লন্ডনস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশনের জ্যেষ্ঠ কূটনীতিকরাও হতবাক। তারা এটাকে ‘আনইউজুয়্যাল’ বলছেন। তবে এ নিয়ে তারা সরাসরি কোনো বক্তব্য দিতে চাইছেন না। অহেতুক বিতর্কে জড়িয়ে যাওয়ার বিষয়েও আগাগোড়ায় সতর্ক বাংলাদেশি কূটনীতিকরা। চিঠির উৎস বা সত্যতা নিয়ে তারা মুখ না খুললেও এটি যেভাবে উপস্থাপিত হয়েছে এবং বিতর্ক তৈরি করেছে তা তাদের অনুমানের বাইরে ছিল বলে দাবি করেন দায়িত্বশীল এক  কূটনীতিক।

তার মতে, রাজনৈতিক নেতৃত্ব যেকোনো বিষয়ে কথা বলতে পারেন। এ বিষয়ে কোনো জিজ্ঞাসা থাকলে তারাই জবাব দেবেন। সেখানে হাই কমিশনের কিছুই বলার নেই। তবে যে চিঠিকে প্রতিমন্ত্রী সামনে এনেছেন তা পৌনে চার বছরের পুরনো। তাছাড়া চিঠি ও পাসপোর্ট সংরক্ষণের বিষয়টি একান্তই গোপনীয়। তা এভাবে প্রকাশ করা কতটা সমীচীন হয়েছে তা বিচার বিশ্লেষণের দাবি রাখে বলেও মনে করেন তিনি। চিঠির ভুলগুলোর বিষয়ে ওই কূটনীতিকের দাবি ‘কুড়িয়ে পাওয়া বা স্বেচ্ছায় হোম অফিসে জমা করা বাংলাদেশি পাসপোর্টগুলো হাই কমিশনে পাঠাতে বৃটিশ সরকার এমন গৎবাঁধা ফরমেটে চিঠি দিয়ে থাকে। তবে অতীতে পাওয়া কোনো চিঠিতে এত ভুল দেখা যায়নি বলেও দাবি করেন তিনি।

শুধু লন্ডনে থাকা ওই কূটনীতিকই নন, সেগুনবাগিচার একাধিক কর্মকর্তাকে গতকাল এ নিয়ে আলোচনা-উদ্বেগ ও হাস্যরস করতে দেখা গেছে। তাদের মতে, স্পর্শকাতর ইস্যুটি জনসমক্ষে প্রকাশের ঘটনা বৃটেনের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কের ওপর প্রভাব ফেলতে পারে। বৃটেন ঐতিহ্যগতভাবে মানুষের ব্যক্তিগত গোপনীয়তার প্রতি শ্রদ্ধাশীল। সেগুনবাগিচা এবং লন্ডন মিশনের তরফে বহুবার তারেক রহমানের বৃটেনে অবস্থান ও বসবাসের বিষয়ে তথ্য চাওয়া হয়েছে। কিন্তু এ নিয়ে কখনই বৃটিশ সরকার বা ঢাকায় থাকা দেশটির কূটনীতিকরা বাংলাদেশের কাছে কোনো তথ্য বিনিময় করেনি।

কারও ব্যক্তিগত তথ্য বিনিময় না করার বিষয়ে বৃটেনের সর্বজনীন যে নীতি রয়েছে সেটি তুলে ধরে তারেক রহমানের বিষয়ে কোনো তথ্য প্রকাশে বরাবরই অপারগতা দেখিয়েছেন তারা। গণমাধ্যমের তরফেও গত ৯ বছরে বহুবার এ নিয়ে সরাসরি প্রশ্ন বা জিজ্ঞাসা ছিল। বৃটেনের তরফে প্রায় অভিন্ন জবাবই দেয়া হয়েছে। এ অবস্থায় রাজনৈতিক নেতৃত্ব বিশেষ করে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী যেভাবে বিষয়টি তুলে এনেছেন তা রাজনৈতিক বক্তব্য হিসাবেই দেখছেন পেশাদার কূটনীতিকরা। তারেক রহমানের লিগ্যাল নোটিসের খবর চাউর হওয়ার প্রেক্ষিতে গত সোমবার বিকালে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপি যখন তার বাসভবনে সংবাদ সম্মেলনের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তখন মানবজমিনের তরফে পররাষ্ট্র সচিবসহ মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হয়। কিন্তু কেউই এ নিয়ে আনুষ্ঠানিক বা অনানুষ্ঠানিক কোনো তথ্য দেয়া এমনকি কথা বলতেও রাজি হননি। তারা পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর কাছে বিস্তারিত শোনার পরামর্শ দেন। প্রতিমন্ত্রী অবশ্য ততক্ষণে তার লন্ডনে দেয়ার বক্তব্যের স্বপক্ষে হোম অফিসের ওই চিঠি এবং তারেক রহমানের পুরনো পাসপোর্টের কয়েকটি পাতা প্রমাণ হিসাবে প্রকাশ করেন। সংবাদ সম্মেলনের আগেই এটি তার অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে প্রকাশ করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী চিঠির উৎস নিয়ে যা বলেছেন তার মোদ্দাকথা হলো- বিএনপির তরফে তার বক্তব্য অসত্য বলার পর তিনি প্রমাণ হাতে নেয়ার চেষ্টা করেছেন। ঢাকায় ফেরার পরপরই তিনি লন্ডনস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে হোয়াটসআপ বা ইন্টারনেটের মাধ্যমে হোম অফিসের ওই চিঠি এবং তারেক রহমানের মেয়াদোত্তীর্ণ পাসপোর্টের পাতাগুলোর ছবি সংগ্রহ করেছেন। প্রতিমন্ত্রী সংগ্রহ করা সেই পাসপোর্টের অনেক পাতার ছবি শেয়ার করেছেন। যাতে তারেক রহমানের ব্যক্তিগত তথ্য, পাসপোর্ট ইস্যুর তারিখ, মেয়াদ, এমনকি তার পাসপোর্টের মেয়াদ বাড়ানো সংক্রান্ত পাতাও প্রতিমন্ত্রী শেয়ার করেছেন। কিন্তু তারেক রহমানের লন্ডন যাওয়ার সেই ভিসার পাতা শেয়ার করেননি। কনস্যুলার নিয়ে কাজ করা এক কূটনীতিক বলেন, তারেক রহমানের ওই পাসপোর্টেই সেই সময়কার ভিসা থাকার কথা। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনে তারেক রহমানের বৃটেনে বসবাসের স্ট্যাটাস বিষয়ে সরকারের কাছে কি তথ্য রয়েছে তা জানার চেষ্টা করেছিলেন সাংবাদিকরা। প্রতিমন্ত্রী তা জানাতে চাননি বা পারেননি। তিনি সেই সময় তারেক রহমানের কাছেই তার স্ট্যাটাস বিষয়ে জানতে পরামর্শ দেন। অন্তত দু’বার তিনি তারেক রহমানের কাছে এ নিয়ে জিজ্ঞাসা করার কথা বলেন। তারেক রহমানের কথা, বক্তব্য, বিবৃতি বা সাক্ষাৎকার প্রকাশে আদালতের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। প্রতিমন্ত্রী বিষয়টি জানার পরও সাংবাদিকদের তারেক রহমানের কাছে জানতে চাওয়ার তাগিদ দেন। এদিকে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর ফেসবুক পেজে ওই চিঠি এবং পাসপোর্টের ছবিগুলো আর দেখা যাচ্ছে না। এটি তিনি নিজে সরিয়ে নিয়েছেন নাকি হ্যাক করে সরিয়ে ফেলা হয়েছে তা নিয়ে ধূম্রজাল তৈরি হয়েছে। ফেসবুক ওয়ালে থাকা তার অন্য তথ্যগুলো ঠিকঠাক আছে কি-না? সেটিও স্পষ্ট নয়। অবশ্য প্রতিমন্ত্রী গতকাল এ নিয়ে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সেখানে তিনি লিখেছেন- ‘আমার ফেসবুকের ওপর অনেক অত্যাচার হয়েছে সারা রাত। হ্যাকিং। পোস্ট উধাও। বুঝতেই পারছেন এই বিনিয়োগ কারা করেছে।’

বাংলাদেশে সেনা সরকার গঠিত হতে পারে: ভারতীয় গবেষণা প্রতিষ্ঠান

বিবিসি বাংলা : বাংলাদেশে এ বছরের শেষে যে নির্বাচন হতে যাচ্ছে, সেটির ব্যাপারে ভারতীয় নীতিনির্ধারকদের চিন্তা-ভাবনা কী? অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন নামে একটি ভারতীয় থিংক ট্যাংক এই নির্বাচন সম্পর্কে একটি বিশ্লেষণ প্রকাশ করেছে। প্রতিষ্ঠানটির ডিস্টিংগুইশড ফেলো মনোজ যোশী এই নির্বাচনকে আঞ্চলিক স্থিতিশীলতার জন্য ‘চ্যালেঞ্জ’ ছুঁড়ে দিতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন।

মনোজ যোশীর এই বিশ্লেষণটি বুধবার অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন প্রকাশ করে। ‘বাংলাদেশ পোলস পোজ এ চ্যালেঞ্জ টু রিজিওনাল স্টেবিলিটি’ নামে এই লেখায় বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে ভারতের ভাবনা সম্পর্কে কিছুটা ইঙ্গিত রয়েছে। মনোজ যোশি লিখেছেন, ২০১৪ সালে বাংলাদেশে যে নির্বাচন হয়, তাতে মাত্র ২২ শতাংশ ভোট পড়েছিল। সেই নির্বাচন বিএনপি বর্জন করে এবং সেসময় অনেক সহিংসতা হয়। কাজেই আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের আশা বাংলাদেশের এবারের নির্বাচন যেন আগের বারের চাইতে বিশ্বাসযোগ্য হয়।
বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ

এ অবস্থায় বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ তাহলে কী দাঁড়াতে পারে? এ প্রশ্ন তুলে মনোজ যোশী দুই ধরণের আশংকার কথা বলছেন।

এক: সবচেয়ে খারাপ যে পরিস্থিতির দিকে বাংলাদেশ যেতে পারে তা হলো সেখানে সংসদীয় রাজনৈতিক দলগুলি দুর্বল হয়ে ইসলামী গোষ্ঠীগুলো সেখানে শক্তিশালী হয়ে উঠতে পারে (হেফাজতে ইসলাম)।দ্বিতীয় পরিস্থিতিতে সেনা সরকার গঠিত হতে পরে, যেটি দেশটির ইতিহাসে এর আগে কয়েক বার ঘটেছে।

মনোজ যোশীর উপসংহার হচ্ছে, এই মূহুর্তে বাংলাদেশ হয়তো তুলনামূলকভাবে একটি ভালো অবস্থানে আছে, কিন্তু ভবিষ্যতে নতুন ধরণের খুবই সহিংস এক ইসলামী জঙ্গীবাদ দেশটিকে ছিন্ন-ভিন্ন করে ফেলতে পারে।

মনোজ যোশী লিখেছেন, ভারতীয় কর্মকর্তারা অবশ্য আবার একই সঙ্গে এমন দাবিও করছেন যে, আওয়ামী লীগ এবং বিএনপির প্রশ্নে তারা নিরপেক্ষ। ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী সুষমা স্বরাজ গত বছরের অক্টোবরে যখন বাংলাদেশ সফরে যান, তখন যে তিনি বিএনপির প্রধান খালেদা জিয়া এবং তাঁর দলের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন, সেটি তারা মনে করিয়ে দিচ্ছেন।

নির্বাচনের বিশ্বাসযোগ্যতা
মনোজ যোশী বলছেন, বাংলাদেশে যে নির্বাচন এ বছরের শেষে হওয়ার কথা, সেটাকে ‘বিশ্বাসযোগ্য’ করা হবে বড় চ্যালেঞ্জ। বিএনপি এই নির্বাচনে অংশ নিতে ইচ্ছুক, কিন্তু তারা চায় একটি ‘দলনিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের’ অধীনে এই নির্বাচন হোক, যে কমিশন নির্বাচনকালীন সরকারের কার্যক্রম পরিচালনা করবে। তবে সম্প্রতি তারা ‘কেয়ারটেকার সরকারের’ অধীনে নির্বাচনের দাবিতেও আন্দোলন শুরু করেছে।

বিএনপি আশা করছে, ক্ষমতাসীন সরকারের বিরুদ্ধে মানুষের যে ক্ষোভ, সেটি তাদের পক্ষে যাবে। তবে বিএনপির নিজের সাংগঠনিক অবস্থা খুব ভালো নেই। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার এবং দুর্নীতির অনেক মামলা ঝুলছে। লন্ডনে বসে এখন দলটি পরিচালনা করছেন তাঁর ছেলে তারেক রহমান।

বিএনপির সাবেক প্রধান মিত্র জামায়াতে ইসলামী যুদ্ধাপরাধের বিচারের মাধ্যমে প্রায় ধ্বংস হয়ে গেছে। জামায়াতে ইসলামী এখন আর নিবন্ধিত দলও নয়, কাজেই তারা নির্বাচনে অংশ নিতে পারছে না। কিন্তু দলটি তাদের ছাত্র সংগঠন ‘ইসলামী ছাত্র শিবিরের’ মাধ্যমে এখনো রাস্তায় লোক জড়ো করার উল্লেখযোগ্য ক্ষমতা রাখে।

নির্বাচনে শেখ হাসিনার সমস্যা মূলত দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকা থেকে উৎসারিত। এছাড়া সাবেক প্রেসিডেন্ট এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি আলাদা ভাবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঘোষণা দিয়েছে। বাংলাদেশের অর্থনীতি যদিও ভালো করছে, ভারতের চেয়েও তাদের প্রবৃদ্ধি ভালো, তারপরও সরকারের ভেতর অনেক দুর্বলতা রয়ে গেছে যা সহজে কাটানো যাচ্ছে না।

সেনাবাহিনীর ভূমিকা
মনোজ যোশী বলছেন, বাংলাদেশের সেনাবাহিনী এখনো পর্যন্ত যদিও নিরপেক্ষ, ২০০৬ সালে কিন্তু তারা একটি কেয়ারটেকার সরকারকে দুবছর ধরে মদত দিতে হস্তক্ষেপ করেছিল।
মনোজ যোশী মনে করেন, যদি আওয়ামী লীগের অধীনে নির্বাচনের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে গুরুতর প্রশ্ন উঠে, তখন এমন সম্ভাবনা আছে যে নির্বাচনী প্রক্রিয়াকে বিশ্বাসযোগ্য করতে সেনাবাহিনীকে টেনে আনা হতে পারে। কিন্তু শেখ হাসিনা এখনো পর্যন্ত সেনাবাহিনীকে তার খুব কাছাকাছি রেখেছেন। তিনি সেনাবাহিনীর আকার দ্বিগুন করেছেন, তাদের জন্য বাজেট বাড়িয়েছেন উদারভাবে, নতুন সেনা ঘাঁটি স্থাপন করেছেন এবং তাদের অস্ত্রশস্ত্রে সুসজ্জিত করেছেন।

আঞ্চলিক শক্তির প্রতিদ্বন্দ্বিতা
২০১৪ সালে বাংলাদেশে যে একতরফা নির্বাচন হয়, সেটি নিয়ে পশ্চিমা দেশগুলোর ভুরু কুঁচকিয়েছিল। কিন্তু এটি চীনকে সুযোগ করে দেয় বাংলাদেশের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হওয়ার। চীনের কাছে বাংলাদেশের গুরুত্ব দুদিক থেকে- প্রথমত ভারতকে মোকাবেলায় কাজে লাগানো, অন্যদিকে বঙ্গোপসাগরের মুখে এবং মিয়ামারের প্রতিবেশি হিসেবে বাংলাদেশের যে ভৌগোলিক অবস্থান সেটিকে কাজে লাগানো। কারণ মিয়ানমারের রাখাইনে তাদের বিরাট বিনিয়োগ আছে।
মনোজ যোশী বলছেন, ভারত যদিও বাংলাদেশের বহুবছরের মিত্র, এখন চীন সেখানে ভারতের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। ২০০৭ সালের পর থেকে চীন বাংলাদেশে প্রায় তিনশো কোটি ডলার বিনিয়োগ করেছে। তারা বাংলাদেশে সেতু, সড়ক থেকে বিদ্যুৎ কেন্দ্র, অনেক কিছুই নির্মাণ করছে। তারা এখন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সবচেয়ে বড় অস্ত্র যোগানদাতা। ২০১৬ সালে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বাংলাদেশ সফরে গিয়ে আরও দুই হাজার কোটি ডলার বিনিয়োগের আশ্বাস দিয়েছেন। এসব প্রতিশ্রুতি রক্ষা করলে চীন হয়ে উঠবে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগকারী দেশ।

ওআরএফ কারা চালায়?
অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন (ওআরএফ) ভারতের একটি সুপরিচিত থিংক ট্যাংক বা গবেষণা প্রতিষ্ঠান। ওআরএফ নিজেদেরকে ‘স্বাধীন’ বলে দাবি করলেও ভারতের অন্যতম বৃহৎ শিল্প গোষ্ঠী রিলায়েন্সের সঙ্গে এর ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। রিলায়েন্স গ্রুপ এই থিংক ট্যাংকের অন্যতম স্পন্সর। একই সঙ্গে ভারত সরকারের সঙ্গেও বিভিন্ন বিষয়ে এক যোগে কাজ করে ওআরএফ। প্রতি বছর নয়াদিল্লিতে ‘রাইসিনা ডায়ালগ’ নামে বহুপাক্ষিক সম্মেলন হয়, অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন সেটির মূল আয়োজক, আর এতে সহায়তা করে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এই সম্মেলনে মূলত ভূ-রাজনীতি এবং অর্থনীতি নিয়ে নীতিনির্ধারকরা আলোচনায় অংশ নেন। ভারত সরকারের আঞ্চলিক নীতি নির্ধারণের ক্ষেত্রে অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন এখন ক্রমশ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে বলে মনে করা হয়। ওআরএফ এর ফেলো মনোজ যোশী ভারতের খুবই সুপরিচিত একজন সাংবাদিক এবং তিনি ভারত সরকারের জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক টাস্ক ফোর্সের একজন সদস্য ছিলেন।

রাষ্ট্রের টাকা লুটপাটে সার্কুলার অবশেষে ইস্যু করলো বাংলাদেশ ব্যাংক!

 

অবশেষে সরকারি আমানতের ৫০ শতাংশ বেসরকারি ব্যাংকে রাখার সার্কুলার জারী করেছে শেখ হাসিনার সরকার। সরকারী নির্দেশনা সার্কুলারটি বিভিন্ন ব্যাংকের মধ্যে বিতরন করে বাংলাদেশ ব্যাংক। নির্দেশনা অনুযায়ী স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আওতায় সরকারের কাছ থেকে পাওয়া তহবিল এবং সরকারি, আধা-সরকারি প্রতিষ্ঠান, স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার মোট নিজস্ব তহবিলের অর্থের ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বেসরকারি ব্যাংকে রাখতে পারবে। কোনো প্রতিষ্ঠান চাইলে এই অর্থ বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী কিছু অ-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানে (এনবিএফআই) অথবা উভয় প্রতিষ্ঠানে রাখতে পারবে।

এর দ্বারা দেউলিয়া ব্যাংকে এমনকি অব্যাংকেও রাষ্ট্রের টাকা জমা রাখার ব্যবস্থা করা হলো। প্রায় দেউলিয়া ব্যাংকগুলি সচল রাখতে রাষ্ট্রের তহবিল লুটপাটের সর্বশেষ আয়োজন এটি।

মানবাধিকার লংঘন নিয়ে লন্ডনে সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাব দিতে অস্বীকৃতি হাসিনার!

« Older Entries