ইকোনমিস্টের মতে বিএনপি নিশ্চিত ক্ষমতায় আসছে

আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সাপ্তাহিক দ্য ইকোনমিস্টের মতে, ২০১৮–র নির্বাচন অর্থাৎ  আগামী ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে বিএনপি ক্ষমতায় আসছে।

দ্য ইকোনমিস্টের ওয়ার্ল্ড ইন ২০১৯ সংখ্যায় বাংলাদেশ প্রসঙ্গে লিখেছে-Investment in infrastructure will sustain the country’s rise on global manufacturing value chain and keep the economy humming. The Awami League, in power since 2009, but BNP set to win another parliamentary majority in December 2018

In a general election due at the end of this month, Hasina’s ruling Awami League (AL) will be fighting to retain power against a new alliance led by Kamal Hossain, an Oxford-educated international jurist and a former foreign minister, whom Hasina grew up calling “kaka”, or uncle.

The 82-year-old lawyer activist joined hands with the main opposition Bangladesh Nationalist Party (BNP) and two other parties to form the Jatiya Oikya Front (National Unity Front) in October.

The BNP is hoping the alliance will help boost its support and move on after a series of setbacks, including the jailing of its leader former Prime Minister of Bangladesh Khaleda Zia for corruption in February and the sentencing of exiled acting leader, her son, in October.

BNP Standing Committee member Barrister Moudud Ahmed said his party joined hands with Hossain for “strategic reasons”.

“Our [of Jatyio Oikya Front] goal is the same, to free the country of tyranny,” he told Al Jazeera.

The octogenarian – a former comrade of Hasina’s father in the country’s independence struggle – says his decision to forge an alliance with the BNP was critical to restoring democracy in the country.

Hasina, the daughter of independence hero Sheikh Mujibur Rahman, is the longest-serving leader in its short history.

‘Joined hands with killers’

She began a second straight term in power in 2014 after an election boycotted by the BNP and shunned by international observers, with more than half the seats uncontested.

“What has happened in the last five years is unprecedented,” Hossain told Reuters news agency. “We have never had a government for five years that was unelected.”

Hasina and BNP chief Zia share a long and bitter rivalry and have alternated in power for most of the past three decades.

Siding with the BNP, though, sets Hossain up as a target for Hasina. The BNP has ties with the banned Islamist party Jamaat-e-Islami, which opposed independence from Pakistan in 1971 and several of whose members have been sentenced to death for committing war crimes.

Days after the new coalition was announced, Hasina declared that Hossain had “joined hands with killers”.

Jamaat has since been banned from participating in the elections, but analysts say many of its cadres are likely to back the BNP candidates.

AL praesidium member Faruq Khan dubbed the Jatyio Oikya Front an “alliance of war criminals”.

“The Oikya Front is not a political alliance, rather it is an alliance of war criminals and militants who don’t believe in the democratisation of the country,” Khan told Al Jazeera.

He said the people of the country haven’t forgotten the last BNP-Jamaat government from 2001-2006.

“The country was a failed state back then.”

Hossain admitted some of the mistakes committed by the BNP in the past.

“Yes, the BNP did a lot of things I never appreciate,” said Hossain. “They injected a degree of communalism into politics, which is very regrettable.”

But he said the coalition would be secular and have nothing to do with groups such as Jamaat.

Alliance contradictions

Analysts have raised doubts about the future of the coalition as its main constituents come from different ideological backgrounds. Also, there is no clarity on who will be the prime minister if the alliance wins the polls.

When asked who will be the “prime minister” if Oikya Front emerges victorious, BNP’s Ahmed said: “It’s a strategic decision which we, at this point, haven’t decided yet.”

“Hossain has already talked about the draft election manifesto of Oikya Front. All I can say that we don’t believe in the centralization of power any more,” he said.

He also said if elected, they would ensure that “the same person could not be the prime minister for more than two terms consecutively.”

The BNP’s participation in the general election scheduled for December 30 was in doubt until last month, when it announced the formation of the new alliance, helmed by Hossain, who runs a group called Gano Forum, or People’s Forum.

The AL said that the BNP was trying to use Hossain’s reputation to get back to power, but added that “it will fail miserably”.

AL Joint Secretary-General Mahbubul Alam Hanif said Hossain’s party Gono Forum had never managed to secure a seat in the parliament. “It proves he is not a people’s person and his party doesn’t have the support of a large population.”

Hossain walks with a stick and says he is not seeking to become prime minister as he is too old.

But some in the coalition, he said, privately compare him with Mahathir Mohamad, the Malaysian prime minister who took power at the age of 92 in May, after defeating a predecessor mired in corruption allegations.

“Maybe his health is better than mine,” quipped Hossain.

Some political analysts predict a strong anti-incumbency sentiment in the election.

Media gagged?

Besides detaining scores of opposition members on charges the BNP terms politically motivated, Hasina’s government has also gone after critics such as prominent photographer Shahidul Alam, who was arrested for comments he made on social media.

Hossain’s daughter Sara is a well-known lawyer who helped secure Alam’s bail last week.

Hasina has introduced laws that rights groups say give her sweeping powers to go after dissenters and gag the media.

The veteran leader called them a “preplanned effort” to create “not even a one-party state, but a one-person state.”

“The real danger of having an authoritarian government like the present one is, God forbid if it survives the next election, many of us will not be able to remain in the country,” said Hossain in reference to his fears that critics will be targeted by the government.

The AL has denied trying to curb free speech or media freedom and called cases filed against BNP members legitimate.

Hossain was born to a physician father under British rule in what is now Kolkata in eastern India. That was before the division into India and Pakistan, out of which Bangladesh was carved following a war in 1971.

He was jailed alongside Hasina’s father and later served him as the country’s first law minister.

He went on to work in various roles at the United Nationsafter quitting the AL in the early 1990s to form the rival People’s Forum.

BNP insiders say his international standing and image as a freedom fighter were reasons behind bringing him into front the alliance.

But some question whether Hossain has the characteristics needed for the uglier side of Bangladeshi politics.

“He is not a rebellious leader, he is a classic constitutional lawyer,” said Shahdeen Malik, a Supreme Court advocate and a professional acquaintance. “Intuitively, he would do things by the book, and in our politics that can be a disadvantage – that to me is his main weakness.”

Political analyst Afsan Chowdhury told Al Jazeera that Hossain’s association with the alliance will benefit the BNP. “I don’t know how much it will improve BNP’s vote bank but it certainly has uplifted BNP’s image,” he said.

Chowdhury said amid the incarceration of Zia, the BNP lacked a guardian to lead the election. “So after aligning with Hossain, the BNP has got a formidable leadership.”

Content Protection by DMCA.com

আ.লীগকে ক্ষমতাচ্যুত করতে ১০ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করবে চীন

শেখ হাসিনার দল আওয়ামী লীগকে ক্ষমতাচ্যুত করতে ১০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয় করবে চীন। উদ্দেশ্য একটাই, বাংলাদেশের আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিরোধী জোট ঐক্যফ্রন্টকে ক্ষমতায় ফিরিয়ে আনা। যার চালিকা শক্তি হলো খালেদার দল বিএনপি। শুধু তাই নয়, তাদের সঙ্গে রয়েছে মৌলবাদী দল জামায়াতে ইসলামী। বিএনপি ও জামায়াতের মূল বৈশিষ্ট্য এরা উভয়ই পাকিস্তান ও চীনপন্থী। অতএব নিজেদের স্বার্থেই চীন বাংলাদেশের এই বিরোধী ঐক্যফ্রন্টকে ক্ষমতায় ফেরাতে আদাজল খেয়ে নেমেছে।
যুগশঙ্খ লিখেছে, ঢাকার প্রশাসন সূত্রে খবর, দীর্ঘ দশ বছর ক্ষমতায় থাকা শেখ হাসিনাকে যেন-তেন প্রকারে গদিচ্যুত করে খালেদার জোটকে মসনদে বসাতে তৎপর চীন। আর এ জন্যই তারা এ অর্থ ব্যয়ে প্রস্তুত।
প্রশ্ন উঠেছে, কেন হাসিনা সরকারের প্রতি এমন বিরাগভাজন হলো চীন?
দেখা গেছে, সম্প্রতি বেশ কয়েকটি বড় বড় প্রকল্প থেকে চীনকে বাদ দেয় হাসিনা সরকার। যার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ছিল বঙ্গোপসাগরের একটি প্রকল্প। হাসিনা সরকারের উপর বেইজিংয়ের আক্রোশের পেছনে এটিই বড় কারণ বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। যার ফলে হাসিনা সরকারকে কুরসিচ্যুত করতে চীনের ১০ বিলিয়ন অর্থব্যয়। একইসঙ্গে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক উন্নয়নের জন্যও বাংলাদেশে বিপুল পরিমাণ বিনিয়োগ করেছে চীন।
প্রশ্ন উঠেছে, অতীতে পদ্মপারের এই দেশের নির্বাচনে যেখানে বিন্দুমাত্র নাক গলায়নি বেইজিং, সেখানে এবার এই সক্রিয়তা কেন? কেন বাংলাদেশের ভোট নিয়ে এত উদ্বিগ্ন চীন?
প্রতিবেদনে পত্রিকাটি লিখেছে, সূত্রের খবর, এনিয়ে ঢাকার চীনা দূতাবাস তিন বার বিবৃতি দিয়েছে। পাশাপাশি বিরোধীদের সঙ্গে একাধিকবার গোপন বৈঠকও করেছে। বিএনপির শীর্ষস্থানীয় কয়েকজন নেতার সঙ্গে ঢাকার চীনা দূতাবাসের কয়েকজন কর্মকর্তা গোপন বৈঠকও করেছেন বলে জানা গেছে। সেখানেই এই আর্থিক সাহায্য দানের কথা বলা হয়। অন্য একটি সূত্রমতে, শুধু দশ বিলিয়ন নয়, তারও বেশি অর্থ ব্যয়ে রাজি চীন।
পরিসংখ্যান বলছে, চীন বাংলাদেশে রপ্তানি করে প্রায় ১৬ থেকে ১৭ বিলিয়ন ডলারের পণ্য। সবমিলিয়ে বাংলাদেশকে তারা বছরে একশো কোটি ডলারের অর্থসাহায্য দেয়। তবে ২০১৬ সালে বাংলাদেশ সফরের সময় চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ২৪ বিলিয়ন বা দুই হাজার চারশো কোটি ডলারের সাহায্য দেওয়ার কথা ঘোষনা করেন। বাংলাদেশের পরিকাঠামোগত প্রকল্পে ৩১ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করছে চীন। যা পাকিস্তানের পরই দক্ষিণ এশিয়ায় সর্বোচ্চ। এর মধ্যে রয়েছে, সড়ক,রেল,কয়লা ও বিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং পানি পরিশোধনগার নির্মাণ। বাংলাদেশে বর্তমানে চীনা বিনিয়োগ সরকারি এবং বেসরকারি খাতে মোট ৪২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।
এছাড়া কৌশলগত অংশীদার হিসাবে চীনের শেনজেন স্টক এক্সচেঞ্জ ও সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জের যৌথ কনসর্টিয়ামের কাছে বাংলাদেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের ২৫ শতাংশ শেয়ার বিক্রির চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে।
/দৈনিক যুগশঙ্খ

Content Protection by DMCA.com

গণগ্রেপ্তার থেকে রেহাই পাচ্ছে না প্রার্থীরাও, ইইউ প্রতিনিধি দলকে বিএনপি

 

ইইউ প্রতিনিধি দলকে বিএনপি: গণগ্রেফতার থেকে রেহাই পাচ্ছে না প্রার্থীরাওইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) প্রতিনিধি দলের সাথে বৈঠকে বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হয়, সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য এখন পর্যন্ত সারাদেশে ‘লেবেল প্লেয়িং ফিল্ড’ তৈরী হয়নি।

বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের গণগ্রেফতার ও তাদের বিরুদ্ধে নতুন নতুন মামলা দায়ের আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের অনুকূল নির্বাচনী পরিবেশের প্রধান অন্তরায় বলে ইইউ প্রতিনিধিদলকে জানান তারা।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে একাদশ সংসদ নির্বাচন নিয়ে ইইউর নির্বাচন বিশেষজ্ঞ দলের সঙ্গে দলটির নেতাদের পৌনে দুই ঘন্টাব্যাপী বৈঠকে বিএনপির পক্ষ থেকে এসব বিষয় জানানো হয় বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়।

তবে বৈঠকের পর ইইউ প্রতিনিধি দল কিংবা বিএনপি নেতারা আনুষ্ঠানিকভাবে গণমাধ্যমকে কিছু বলেননি।

ঢাকায় ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত রেনজিং টিরিংকের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলে ইইউর নির্বাচন বিশেষজ্ঞ ডেভিড নোয়েল ওয়ার্ড ও ইরিনি মারিয়া গোনারি ছিলেন।

বিএনপি প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আরও ছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, সহ আন্তর্জাতিক সম্পাদক রুমিন ফারহানা, নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল প্রমুখ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির কূটনৈতিক শাখার এক সদস্য বলেন, বৈঠকে ইইউর প্রতিনিধি দলের সদস্যরা নির্বাচনের পরিবেশ সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। জবাবে বিএনপির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এখন পর্যন্ত সব রাজনৈতিক দলের জন্য সমান সুযোগ তৈরি করতে পারেনি নির্বাচন কমিশন। তফসিল ঘোষণার দিন থেকে এ পর্যন্ত সুনির্দিষ্ট গ্রেফতার ও মামলার তথ্য জানানো হয়েছে। সারা দেশে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার অব্যাহত রয়েছে। বিএনপির মনোনীত প্রার্থীদের গ্রেফতারের বিষয়েও অবহিত করেছেন তারা।

সূত্র জানায়, খালেদা জিয়ার মামলা ও তার অসুস্থতার কথাও জানান বিএনপি নেতারা। এছাড়া নির্বাচন কমিশনের কাছে বিতর্কিত পুলিশ ও প্রশাসনের কর্মকর্তাদের রদবদলের জন্য তালিকা দেওয়া হলেও ইসি কোন ব্যবস্থা নেয়নি বলেও তাদের অবহিত করেন বিএনপি নেতারা।

ইইউর প্রতিনিধি দলের সদস্যরা জানিয়েছেন, তারা নির্বাচনের সময় পর্যবেক্ষক পাঠাবেন না। তবে বাংলাদেশের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করবেন।

Content Protection by DMCA.com

ভারতে প্রমোদ ভ্রমণে ২৫ কর্মকর্তা পাঠিয়ে বিতর্কে জড়ালো সেনাবাহিনী!

ভারতে প্রমোদ ভ্রমণে সেনাবাহিনীর বিতর্কিত ২৫ কর্মকর্তা
ভারতে প্রমোদ ভ্রমণে সেনাবাহিনীর বিতর্কিত ২৫ কর্মকর্তা

এ মুহূর্তে স্বস্ত্রীক ভারতে প্রমোদ ভ্রমণে রয়েছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ২৫ বিতর্কিত কর্মকর্তা। জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে তাদের এ ভারত সফর ইতোমধ্যেই জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে।

গত ২৬ নভেম্বর ভারতের অর্থায়ন ও পূর্ণাংঙ্গ সহযোগিতায় স্বস্ত্রীক ভারতে যান এই ২৫ সেনা কর্মকর্তা। আগামী ২ ডিসেম্বর তাদের দেশে ফেরার কথা রয়েছে। ভারতীয় বিমানবাহিনীর দু’টি বিমানে করে তাদের বিশেষ মর্যাদায় ভারতে নিয়ে যাওয়ায় বাংলাদেশী সেনা কর্মকর্তাদের এ সফর জনমনে আরও বেশি সন্দেহ সংশয়ের সৃষ্টি করেছে। বিশেষ করে এই ২৫ কর্মকর্তার পরিচয় গোপন রাখা ও বাহিনীতে তাদের অবস্থান কি সে সম্পর্কিত তথ্য কোন পক্ষ থেকেই প্রকাশ না করায় ধুম্রজালের সৃষ্টি হয়েছে।

null

ভারতীয় দূতাবাস থেকে প্রাপ্ত তথ্যমতে, বিশেষভাবে নির্ধারিত এই দু’টি সামরিক বিমানে করেই ৫০ সদস্যের এ দলটি দিল্লী, আগ্রা, কলকাতা ও চুরুলিয়াতে ভ্রমণ করবে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধান এম এ আজিজের পরামর্শকে গুরুত্ব দিয়েই ভারত এই ভ্রমণের আয়োজন করেছে বলে তাদের দাবি।

বাংলাদেশের বিগত ৫ জানুয়ারীর ভোটারবিহীন নির্বাচনে ভারতের প্রকাশ্য সমর্থনকে দেশের মানুষ অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ বলে মনে করছে। তাই এবারের নির্বাচনে ভারতের ভূমিকার দিকে সবাই সচেতনভাবেই নজর রাখছে। বাংলাদেশে যখন জাতীয় নির্বাচনের জোর প্রস্তুতি চলছে তারই মধ্যে ভারতের পৃষ্ঠপোষকতায় কিছু সেনা কর্মকর্তার এই বিশেষ ভ্রমণ জনমনে নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে।

সেনাবাহিনী দেশের মানুষের আস্থার স্থল। জাতীয় রাজনীতির এই সঙ্কটকালীন মূহুর্তে বৈরি আচরণ প্রদর্শনকারী ভারতের সাথে সেনা কর্মকর্তাদের এই দহরম মহরম বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের ভবিষ্যত নিয়ে স্বাধীনচেতা জনগণকে শঙ্কায় ফেলেছে। সেই সাথে বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের ভবিষ্যত কি তা নিয়েও নতুন করে ভাবনায় পড়েছে দেশের মানুষ।

উল্লেখ্য, আন্তর্জাতিক নদীতে বাঁধ নির্মাণ করে বাংলাদেশকে মরুকরণ, অব্যাহত সীমান্ত হত্যা, জনসমর্থনহীন অবৈধ সরকারকে সমর্থন, অস্ত্র ও মাদক পাচার, ব্যবসা-বাণিজ্যে হস্তক্ষেপসহ বাংলাদেশের সাধারন জনগণের সাথে নানাভাবে বৈরিতা করে আসছে প্রতিবেশী ভারত। শুধু যে বাংলাদেশের সাথেই এমনটি করছে তা নয়, প্রতিবেশী অন্যান্য রাষ্ট্রও ভারতের অপরাজনীতির শিকার। নেপাল, শ্রীলঙ্কা ও মালদ্বীপ তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।অ্যানালাইসিস বিডি

Content Protection by DMCA.com

কথা শুনছে না সেনাবাহিনী, সরে যাচ্ছে পুলিশ, ভিত নড়ে গেছে সরকারের: ডা. জাফরুল্লাহ

‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কথা তাঁর সেনাবাহিনী এখন শুনছে না। পুলিশ এখন আমাদেরকে বলছে আন্দোলনের মাঠে অবস্থান করতে। বোঝাই যাচ্ছে, সরকারের ভিত নড়ে গেছে’ – বলেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‘২ মাস আগে প্রেসক্লাবের সামনে আমি দেখেছি পুলিশ আমাদেরকে বলেছে, স্যার যায়েন না, এইখানে থাকেন। সেটা দু’মাস আগের কথা। এখনকার পরিস্থিতি তো আরও পরিবর্তন হয়েছে।’

বিএনপি নেতাদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘যাদেরকে এত ভয় করেন পুলিশ ও র‌্যাবের ডিজি তারা এখন যোগাযোগ করছে বিভিন্ন জায়গায়। তাই আপনারও ভয় পাবেন না। তারা সর্বোচ্চ কি করতে পারে- ধরে নিয়ে যাবে, সর্বোচ্চ মেরে ফেলবে। ১৯৭১ সালে আমাদের মরে যাওয়ার কথা ছিল। গণতন্ত্রের প্রতিষ্ঠা করতেই আমরা এখনও বেঁচে আছি।’

শনিবার (২৪ নভেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল আয়োজিত আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি। ’৭১’র মুক্তিযুদ্ধ ও আজকের বাংলাদেশ, আসন্ন নির্বাচনে রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধাদের প্রত্যাশা এবং করণীয় শীর্ষক এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জাফরুল্লাহ বলেন, ‘নির্বাচনের সময় আমি কোনও মুক্তিযোদ্ধার মুখে শুনতে চাই না যে মাঠে পুলিশ আছে বলে আমরা যেতে পারছি না। কত লাখ পুলিশ এখানে আছে? আমাদের পক্ষে জনগণ আছে ১৮ কোটি। আমরা যেসব সমাবেশ করেছি সব জায়গায় পুলিশ রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছিল। তবুও হেঁটে গিয়ে মানুষ সমাবেশে অংশগ্রহণ করেছে। এ ধরনের ঘটনা দেখা গেছে সত্তরের দশকে মাওলানা ভাসানীর ডাকে মানুষ যখন আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেছিল।’

তিনি বলেন, ‘ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে আমার প্রত্যাশা- এবারের জাতীয় সংসদে কমপক্ষে ১৫ জন মুক্তিযোদ্ধা নেতা থাকবে। তবেই আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রতিষ্ঠা হবে। তারা ১৯৭১ সালে যেভাবে যুদ্ধ করেছিল দেশের গণতন্ত্র রক্ষায় সংসদেও সেভাবেই অবস্থান নেবেন।’

জাফরুল্লাহ বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করার একমাত্র উদ্দেশ্য ছিল গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা। যেন সাধারণ মানুষ স্বাধীনভাবে কথা বলতে পারে বা তার মত প্রকাশ করতে পারে। সরকার যখন স্বৈরাচারী হয়ে যায় তখন সে তার অতীত ভুলে যায়। আমরা চাই সেই অতীতকে মনে করিয়ে দিতে। একাত্তরে যুদ্ধ করে আমরা যেমন স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনেছিলাম এখনো সেভাবেই জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে চাই।’

তিনি বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধে আমরা দ্বিতীয় যে কথাটি দিয়েছিলাম সেটি হল ন্যায়বিচার। আমি কখনো বলিনি খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে মুক্ত করতে হবে। আমি বলেছি তাঁর ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে হবে। সুবিচার পেলেই তিনি আজ কারাগারের বাইরে থাকতেন। আমরা কি টানা দুবার ক্ষমতায় থাকলে শেখ হাসিনার নামে ১৯২টা মামলা দিয়ে দিতাম?’

সরকারের ভিত নড়ে গেছে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতি দেখে বোঝা যাচ্ছে সরকারের ভিত নড়ে গেছে। যখন বেনজির-আসাদুজ্জামানের মত লোকজন যোগাযোগ শুরু করে তখন বোঝা যায় ১ কোটি লোককে গ্রেফতার করা যায় না।’

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা বলেন, ‘আমরা বৈষম্য দূর করতে চাই। আজকে আমরা দেখছি কেউ কেউ কোটি কোটি টাকার মালিক হয়ে যাচ্ছে। আর কেউ দরিদ্র থেকে যাচ্ছে। এ বৈষম্য আমরা দেখতে চাই না। বৈষম্যের কারণে মানুষের দুরবস্থা কি রকম হয় সেটা যদি দেখতে চান তাহলে ধানমন্ডিতে আমার হাসপাতালে আসতে পারেন। সেখানে মানুষ ডায়ালাইসিসের জন্য ৫০০ টাকা দিতে পারে না।’ ‌

/ব্রে‌কিং‌নিউজ

Content Protection by DMCA.com

নৌকার পক্ষে নির্বাচনের ফল কব্জা করতে পুলিশ ও প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিদের গুপ্ত মিটিং অনুষ্ঠিত!

গত ২০ নভেম্বর মঙ্গলবার রাতে ঢাকা অফিসার্স ক্লাবের চার তলার পিছনের কনফারেন্স রুমে এক গোপন মিটিং অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন –
১) প্রধানমন্ত্রীর সচিব, সাজ্জাদুল হাসান
২) ফয়েজ আহমদ, জনপ্রশাসন সচিব
৩) হেলালউদ্দীন আহমদ, নির্বাচন কমিশন সচিব
৪) কবির বিন আনোয়ার, সচিব পানিসম্পদ (শেখ হাসিনার অফিসের প্রাক্তন ডিজি)
৫) মহিবুল হক, বেসামরিক বিমান পরিবহন সচিব
৬) ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার কে এম আলী আজম (মহানগরী রিটার্নিং অফিসার) – সদস্য সচিব
৭) প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব-১ তোফাজ্জেল হোসেন মিয়া
৮) কাজী নিশাত রসুল, প্রধানমন্ত্রীর এপিএস-১ (বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার বিচারক জজ কাজী গোলাম রসুলের মেয়ে)
৯) মেসবাহউদ্দিন, যুগ্মসচিব, (১১ বিসিএস) অফিসার্স ক্লাবের কোষাধ্যক্ষ।

এছাড়াও পুলিশের পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন:
১. র‌্যাবের ডিজি বেনজীর আহমেদ
২. ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া
৩. ডিএমপির কাউন্টার টেররিজমের অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম
৪. পুলিশ হেড কোয়োর্টারের ডিআইজি প্রশাসন হাবিবুর রহমান
৫. ডিএমপির ডিসি প্রলয় জোয়ার্দার (শেখ হাসিনার প্রাক্তন প্রটোকল অফিসার)

রাত সাড়ে ৭টা থেকে আড়াই ঘন্টা ধরে চলা এ মিটিংয়ে সারাদেশের ইলেকশন ইঞ্জিনিয়ারিং সেট-আপ ও প্লান রিভিউ করা হয়। ডিআইজি হাবিব জানায়, পুলিশ সূত্রের খবর অনুযায়ী ৩৩টি সিট নৌকার কনফার্ম আছে, এবং ৬০-৬৫ টিতে কনটেস্ট হবে, বাকী আর কোনো সম্ভাবনা নেই। কাজেই সাংঘাতিক কিছু করা ছাড়া এ খেলা উৎরানো যাবে না।

বিস্তারিত আলোচনা শেষে মূল সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, নির্বাচন কমিশন থেকে বিএনপি-ফ্রন্টকে চরম অসহযোগিতা করা হবে, যতই চাপ দেয়া হোক প্রশাসনে হাত দেয়া যাবেনা, ধরপাকড় বাড়ানো হবে, প্রার্থী গুম খুণ করে এমন অবস্থা তৈরী করা হবে যাতে তারা নির্বাচন থেকে বেরিয়ে যেতে বাধ্য হয়।
আর শেষ পর্যন্ত ভোটে থেকে গেলে ভোটের দিন পর্যন্ত ধরপাকড়ের তান্ডব চালানো হবে নির্দয়ভাবে, যেনো ভোট কেন্দ্রে কেউ হাজির হতে সাহস না করে। আর যদি ভোটের ফ্লো ঠেকাতে না যায়, তবে মিডিয়া ক্যু করে নৌকাকে জিতানো হবে, বিটিভির মাধ্যমে ফলাফল ঘোষণা করে সব মিডিয়াতে তা রিলে করার ব্যবস্থা করা হবে। একবার ফল ঘোষণা করতে পারলে তারপরে নির্মমভাবে সব ঠান্ডা করা হবে।

এরপর থেকে এ ধরণের সভা খুব বেশি করা যাবেনা, তবে কনসালটেশন করে কাজ করা হবে। খবর ডিআইজি হাবিব সূত্রের।

উল্লেখ্য, উন্নয়ন প্রকল্প তদারকির নামে আসন্ন একাদশ জাতীয় নির্বাচন নিয়ন্ত্রণ করার লক্ষে ৮ জন আওয়ামী দলীয় কর্মকর্তা দিয়ে মনিটরিং সেল গঠন করে পুলিশ সদর দপ্তর। এছাড়া বিভিন্ন পর্যায়ের সাবেক ও বর্তমান ৪৫ জন সিনিয়র কর্মকর্তাকে ৬৪ জেলার উপদেষ্টা (মেনটর) নিয়োগ করে একটি নজিরবিহীন সরকারী আদেশ জারী করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এ নিয়ে বিএনপির লিখিত আপত্তির প্রেক্ষিতে তা বাতিল করতে বাধ্য হয়। কিন্তু গোপনে ঐসব কর্মকর্তারা জেলায় জেলায় মনিটরিংয়ের কাজ এখনও চালিয়ে যাচ্ছেন। এর বাইরে সারা দেশের ভোট ইঞ্জিনিয়ারিং করার লক্ষে শেখ হাসিনা প্রথম তালিকার ৬ জন সচিবকে নিয়ে একটি গুপ্ত কমিটি গঠন করেছেন। সেই কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হলো ঢাকা অফিসার্স ক্লাবে। মুলত এখানে সব ধরণের অফিসারদের গমনাগমণ ঘটে থাকে, তাই বিরোধী পক্ষের চোখ এড়ানো সহজ হবে মনে করে জনবহুল এই স্থানে গুরুত্বপূর্ন সভাটি বসে।

Content Protection by DMCA.com

গায়েবি মামলাকারী পুলিশের পক্ষে কতটা নিরপেক্ষ থাকা সম্ভব, প্রশ্ন ইসি মাহবুব তালুকদারের  

 

তফসিল ঘোষণার আগে যে পুলিশ গায়েবি মামলা করেছে, তফসিল ঘোষণার পরে তাদের পক্ষে রাতারাতি পাল্টে গিয়ে নির্বাচনে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন কতটা সম্ভব এই প্রশ্ন তুলেছেন নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মাহবুব তালুকদার।

বৃহস্পতিবার (২২ নভেম্বর) রাজধানীর আগারগাঁও নির্বাচন ভবনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক বিশেষ সভায় ইসি কমিশনার মাহবুব চার পৃষ্ঠার লিখিত বক্তব্যে এসব প্রশ্ন তোলেন।

সিইসির সভাপতিত্বে সভায় চার নির্বাচন কমিশনার, ইসি সচিব, অতিরিক্ত সচিব, জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব, আইজিপি, জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক, ডিএমপি কমিশনারসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

গাজীপুর সিটি নির্বাচনে পুলিশের ভূমিকা প্রসঙ্গে মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘গাজীপুরে নির্বাচনকালে ইউনিফরমধারী পুলিশ ও সাদা পোষাকের পুলিশ অনেক ব্যক্তিকে বাসা থেকে কিংবা রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ আছে। অনেককে অন্য জেলায় নিয়ে যাওয়া হয়। তাদের একজন ছাড়া পুলিশ অন্যদের গ্রেফতারের বিষয়ে কোনো স্বীকারোক্তি করেনি। নির্বাচনের পর দেখা যায় তাদের ১০ জনকে অন্তত কেরানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারে পাওয়া গেছে’। মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘গ্রেফতার না করলে তারা কারাগারে গেলেন কীভাবে? এ প্রশ্নের কোনো জবাব পাওয়া যায়নি’।

সাম্প্রতিক সময়ে আলোচিত গায়েবি মামলা প্রসঙ্গে মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘বর্তমানে বহুল প্রচলিত গায়েবি মামলা এখন আর গায়েবি আওয়াজ না। মাননীয় হাইকোর্ট পর্যন্ত এ ধরনের মামলাতে পুলিশের ভাবমূর্তি বিনষ্ট হয় বলে উল্লেখ করেছেন। ঢাকার পুলিশ কমিশনার মহোদয় মহোদয় পুলিশ বাহিনীকে গায়েবি মামলা না করতে নির্দেশ দিয়েছেন। তারপরও অনেক ক্ষেত্রে এরূপ মামলা চালু রয়েছে’। আমার প্রশ্ন হলো সিডিউল ঘোষণার পূর্বে যে পুলিশ গায়েবি মামলা করেছে, সিডিউল ঘোষণার পরে তার পক্ষে রাতারাতি পালটে গিয়ে নির্বাচনে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন কতটা সম্ভব? এ প্রশ্ন মনে জাগে’। তিনি বলেন, ‘পুলিশ বাহিনী নির্বাচনে সবচেয়ে বড় সহায়ক শক্তি। তারা নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন না করলে নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়বে’।

ইসি কমিশনার বলেন, ‘কিছু সংখ্যাক গায়েবি মামলার আসামিদের তালিকা বিরোধী দল থেকে নির্বাচন কমিশনে পাঠানো হয়েছে। যদিও অধিকাংশই পুরনো মামলা। এসব মামলা অজ্ঞাতনামা আসামিদের অনেকের আদালত থেকে জামিন নেওয়া হয়তো সম্ভব হবে না। কোনো কোনো সম্ভাব্য প্রার্থীর বিরুদ্ধে মামলা থাকার কারণে তারা নির্বাচনী প্রচারকাজ চালাতে ভয় পাচ্ছেন। এহেন ভয়ভীতি অমূলক নয়। নির্বাচন ব্যবস্থাপনাকে স্বাভাবিক রাখার স্বার্থে নির্বাচন পূর্ব সময়ে প্রার্থীরা যাতে হয়রানির শিকার না হয়, সে জন্য ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। এ সর্ম্পকে নির্বাচন কমিশন থেকে যে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তা যথাযথভাবে পালন করা প্রয়োজন’।

ইসি কমিশনার বলেন, ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে মিডিয়ায় যে বিষয়টি ব্যাপকভাবে আলোচিত হচ্ছে তা হলো, নির্বাচন কর্মকর্তাদের তথ্য সংগ্রহে পুলিশ দুই মাস পূর্ব থেকে মাঠে নেমেছে। তারা প্রিসাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার ও পুলিং কর্মকর্তাদের বিষয়ে নানারুপ তথ্য সংগ্রহ করছে এবং জিজ্ঞাসাবাদ করছে। এই তথ্যানুসন্ধানের বিষয়ে পুলিশকে কোন নির্দেশনা দেওয়া হয়নি। কমিশন নির্বাচন কর্মকর্তাদের তথ্য সংগ্রহের জন্য কোনো নির্দেশনা দেয়নি। সুতরাং এসব কর্মকাণ্ড কে কি উদ্দেশ্যে করছে তা রহস্যজনক। বলা বাহুল্য অতি উৎসাহী কিছু পুলিশ সদস্যের এই কর্মকাণ্ডে ব্যাপক বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে, যার দায় নির্বাচন কমিশনের ওপর এসে পড়ে’। তিনি বলেন, ‘আমরা কোনভাবেই এই নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ হতে দিতে পারি না। আর একথা সত্য যে আমরা প্রশ্নবিদ্ধ হলে তার দায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর বর্তাবে এবং আপনারা প্রশ্নবিদ্ধ হলে আমরা দায় এড়াতে পারবো না’।

মাহবুব তালুকদার বরিশাল সিটি নির্বাচন অনিয়ম প্রসঙ্গে বলেন, “কোনো কোনো ক্ষেত্রে বিরোধী প্রার্থীদের পুলিশ অযাচিতভাবে হয়রানি করা হয়েছে। আবার সরকারি দলের প্রার্থীর আচরণবিধি লঙ্ঘনের ঘটনায় পুলিশকে নিষ্ক্রীয় থাকতে দেখা গেছে। শুধু তাই নয় উল্টো বিরোধী প্রার্থীর প্রচার প্রচারণায় পুলিশের অযাচিত হস্তক্ষেপের অভিযোগ রয়েছে”। তিনি বলেন, “বরিশাল সিটি নির্বাচনের ভোট বন্ধ করে দেওয়ার জন্য সব কমিশনার একমত হলেও নির্বাচন বন্ধ করলে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী পরিস্থিতি সামাল দিতে পারবে কিনা এবং নির্বাচন কর্মকর্তাদের নিরাপত্তা দেওয়া সম্ভব হবে কি না তা ভেবে নির্বাচন বন্ধ করা থেকে আমরা বিরত থাকি’।

মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘১৯৭০ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক থাকাকালে তৎকালিন জাতীয় নির্বাচনে প্রিসাইডিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করেছিলাম। নির্বাচন বিষয়ে সেটাই ছিল আমার প্রথম অভিজ্ঞতা। নির্বাচন কমিশনে যোগদানের পর সেই অভিজ্ঞতা দিনে দিনে ফুলে পল্লবে পরিণত হয়েছে’।

উল্লেখ্য ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচন। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ২৮ নভেম্বর, মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাই ২ ডিসেম্বর, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ ৯ ডিসেম্বর এবং প্রতীক বরাদ্দ ১০ ডিসেম্বর।
শীর্ষনিউজ/এসএসআই

Content Protection by DMCA.com

পুলিশ ও প্রশাসনের যে ৯২ কর্মকর্তার প্রত্যাহার চাইল জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দায়িত্ব পালনে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে র্যাবের ডিজিসহ পুলিশের শীর্ষ ৭০ এবং ইসি সচিবসহ জনপ্রশাসনের ২২ জন কর্মকর্তাকে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে ২০ দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। বিরোধী জোটের পক্ষ থেকে বিএনপির মহাসচিব ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর পুলিশ ও জনপ্রশাসনের ৯২ জন কর্মকর্তার নাম উল্লেখ করে ইসিতে চিঠি পাঠান । এই ৯২ কর্মকর্তার একটি তালিকা নির্বাচন কমিশনে (ইসি) জমা দেয়া হয়েছে। কেন তাদের প্রত্যাহার করা জরুরি তাও ব্যাখ্যা দেয়া হয়েছে আজকের চিঠিতে।

পুলিশের যে ২২  কর্মকর্তার প্রত্যাহার চাইল বিএনপি:

১. পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত আইজিপি (প্রশাসন) জামালপুরের মো. মোখলেসুর রহমান (বিসিএস সপ্তম ব্যাচ), ২. র‍্যাবের মহাপরিচালক ও অতিরিক্ত আইজিপি গোপালগঞ্জের বেনজীর আহম্মেদ (বিসিএস সপ্তম ব্যাচ), ৩. ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার ফরিদপুরের আছাদুজ্জামান মিয়া (বিসিএস সপ্তম ব্যাচ), ৪. অতিরিক্ত আইজিপি (টেলিকম) পাবনার মো. ইকবাল বাহার (বিসিএস অষ্টম ব্যাচ), ৫. নৌপুলিশের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) খুলনার শেখ মো. মারুফ হাসান (বিসিএস অষ্টম ব্যাচ), ৬. সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি চাঁদপুরের মো. কামরুল আহসান (বিসিএস ১২তম ব্যাচ), ৭. চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি টাঙ্গাইলের খন্দকার গোলাম মারুফ (বিসিএস ১২তম ব্যাচ), ৮. খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি গোপালগঞ্জের মো. দিদার আহম্মেদ (বিসিএস ১২তম ব্যাচ), ৯. রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি গোপালগঞ্জের এম খুরশীদ হোসেন (বিসিএস ১২তম ব্যাচ), ১০. খুলনা মহানগর পুলিশের (কেএমপি) কমিশনার ও ডিআইজি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার হুমায়ুন কবির (বিসিএস ১২তম ব্যাচ),

১১. ডিএমপির কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের অতিরিক্ত কমিশনার জামালপুরের মো. মনিরুল ইসলাম (বিএসএস ১৫তম ব্যাচ), ১২. চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের (সিএমপি) কমিশনার ও ডিআইজি জামালপুরের মাহবুবুর রহমান (বিসিএস ১৫তম ব্যাচ), ১৩. ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার ও ডিআইজি মাগুরার মীর রেজাউল আলম (বিসিএস ১৫তম ব্যাচ), ১৪. ঢাকা সিটি এসবির ডিআইজি গোপালগঞ্জের মো. আলী মিয়া (বিসিএস ১৫তম ব্যাচ), ১৫. রংপুর রেঞ্জের ডিআইজি মৌলভীবাজারের দেবদাস ভট্টাচার্য (বিসিএস ১৫তম ব্যাচ), ১৬. ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার ও ডিআইজি হবিগঞ্জের কৃষ্ণপদ রায় (বিসিএস ১৫তম ব্যাচ), ১৭. পুলিশ সদর দপ্তরের ডিআইজি (প্রশাসন) গোপালগঞ্জের হাবিবুর রহমান (বিসিএস ১৭তম ব্যাচ), ১৮. পুলিশ সদর দপ্তরের ডিআইজি (অপারেশন) কিশোরগঞ্জের আনোয়ার হোসেন (বিসিএস ১৭তম ব্যাচ), ১৯. রাজশাহী পুলিশ কমিশনার (আরএমপি) ও ডিআইজি গাজীপুরের হাফিজ আক্তার (বিসিএস ১৭তম ব্যাচ), ২০. পুলিশ সদর দপ্তরের ডিআইজি (ট্রেনিং) ও বরিশালের ড. খ মহিদ উদ্দিন (বিসিএস ১৭তম ব্যাচ),

২১. ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার ও ডিআইজি সুনামগঞ্জের আবদুল বাতেন (বিসিএস ১৭তম ব্যাচ), ২২. রংপুর মহানগরে র‍্যাব-৪ এর অধিনায়ক ও অতিরিক্ত ডিআইজি রাজবাড়ীর চৌধুরী মঞ্জুরুল কবির (বিসিএস ১৭তম ব্যাচ), ২৩. ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার ও অতিরিক্ত ডিআইজি নড়াইলের শেখ নাজমুল আলম (বিসিএস ১৭তম ব্যাচ), ২৪. খুলনা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি ময়মনসিংহের এ কে এম নাহিদুল ইসলাম (বিসিএস ১৭তম ব্যাচ), ২৫. পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত ডিআইজি যশোরের মো. মনিরুজ্জামান (বিসিএস ১৭তম ব্যাচ), ২৬. সিলেট রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি খুলনার জয়দেব কুমার ভদ্র (বিসিএস ১৮তম ব্যাচ), ২৭. ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি মাদারীপুরের মো. আসাদুজ্জামান (বিসিএস ১৮তম ব্যাচ),

২৮. ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার (ডিবি) কুমিল্লার মাহবুব আলম (বিসিএস ১৮তম ব্যাচ), ২৯. ঢাকা সিআইডির পুলিশ সুপার (এসপি) নড়াইলের মোল্যা নজরুল ইসলাম (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৩০. সিলেটে ট্যুরিস্ট পুলিশের এসপি পাবনার আলতাফ হোসেন (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৩১. ডিএমপির তেজগাঁও জোনের উপকমিশনার (ডিসি) কিশোরগঞ্জের বিপ্লব কুমার সরকার (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৩২. ডিএমপির ডিসি কিশোরগঞ্জের হারুন অর রশিদ (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৩৩. ডিএমপির রমনা জোনের ডিসি খুলনার মো. মারুফ হোসেন সরদার (বিসিএস ২১তম ব্যাচ), ৩৪. সিএমপির ডিসি খুলনার এস এম মেহেদী হাসান (বিসিএস ২২তম ব্যাচ),

৩৫. ডিএমপির ডিসি (ডিবি উত্তর) মাগুরার খন্দকার নুরুন নবী (বিসিএস ২২তম ব্যাচ), ৩৬. সিএমপির ডিসি সিরাজগঞ্জের মো. ফারুকুল হক (বিসিএস ২২তম ব্যাচ), ৩৭. ডিএমপির কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের ডিসি নেত্রকোনার প্রলয় কুমার জোয়ার্দার (বিসিএস ২৪তম ব্যাচ), ৩৮. ডিএমপির ডিসি গোপালগঞ্জের এস এম মুরাদ আলী (বিসিএস ২৪তম ব্যাচ), ৩৯. ডিএমপির এডিসি গোপালগঞ্জের শিবলী নোমান।

৪০. ঢাকা বিভাগের ঢাকা জেলার এসপি নাটোরের লালপুরের শাহ মিজান শফি (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৪১. নারায়ণগঞ্জের এসপি গোপালগঞ্জের মো. আনিসুর রহমান (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৪২. মুন্সীগঞ্জের এসপি মাদারীপুরের মো. জায়েদুল আলম (বিসিএস ২২তম ব্যাচ), ৪৩. নরসিংদীর এসপি পটুয়াখালীর মিরাজ (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৪৪. টাঙ্গাইলের এসপি সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার সঞ্জিত কুমার রায় (বিসিএস ২২তম ব্যাচ), ৪৫. মাদারীপুরের এসপি বাগেরহাটের চিতলমারীর সুব্রত কুমার হাওলাদার (বিসিএস ২১তম ব্যাচ)। ৪৬. ময়মনসিংহ বিভাগের ময়মনসিংহ জেলার এসপি বাগেরহাটের শাহ আবিদ হোসেন (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৪৭. শেরপুরের এসপি ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার আশরাফুল আজিম (বিসিএস ২৪তম ব্যাচ),

৪৮. সিলেট বিভাগের সিলেট জেলার এসপি পটুয়াখালীর মো. মনিরুজ্জামান (বিসিএস ২০তম ব্যাচ),৪৯. বরিশাল বিভাগের বরিশাল জেলার এসপি পাবনার সুজানগর উপজেলার সাইফুল ইসলাম (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৫০. ভোলার এসপি পটুয়াখালীর মোক্তার হোসেন (বিসিএস ২১তম ব্যাচ), ৫১. খুলনা বিভাগের খুলনার এসপি গোপালগঞ্জের এস এম শফিউল্লাহ (বিসিএস ২৪তম ব্যাচ), ৫২. সাতক্ষীরার এসপি ঝিনাইদহের মো. সাজ্জাদুর রহমান (বিসিএস ২১তম ব্যাচ), ৫৩. বাগেরহাটের এসপি লালমনিরহাটের পঙ্কজ চন্দ্র রায় (বিসিএস ২১তম ব্যাচ), ৫৪. যশোরের এসপি পটুয়াখালীর মঈনুল হক (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৫৫. ঝিনাইদহের এসপি নড়াইলের হাসানুজ্জামান (বিসিএস ২২তম ব্যাচ), ৫৬. কুষ্টিয়ার এসপি বাগেরহাটের আরাফাত তানভীর (বিসিএস ২৪তম ব্যাচ), ৫৭. চট্টগ্রাম বিভাগের চট্টগ্রাম জেলার এসপি গোপালগঞ্জের নূরে আলম মিনা (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৫৮. নোয়াখালীর এসপি ফরিদপুরের বোয়ালমারীর ইলিয়াস শরিফ (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৫৯. ফেনীর এসপি পাবনার এসএম জাহাঙ্গীর আলম সরকার (বিসিএস ২২তম ব্যাচ),

৬০. কুমিল্লার এসপি চাঁপাইনবাবগঞ্জের সৈয়দ নুরুল ইসলাম (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৬১. রংপুর বিভাগের রংপুর জেলার এসপি জামালপুরের মিজানুর রহমান (বিসিএস ২১তম ব্যাচ), ৬২. দিনাজপুরের এসপি ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার সৈয়দ আবু সায়েম (বিসিএস ২৪তম ব্যাচ), ৬৩. ঠাকুরগাঁওয়ের এসপি কুষ্টিয়ার মনিরুজ্জামান (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৬৪. রাজশাহী বিভাগের রাজশাহী জেলার এসপি শেরপুরের মো. শহীদুল্লাহ (বিসিএস ২৪তম ব্যাচ), ৬৫. চাঁপাইনবাগঞ্জের এসপি গাজীপুরের মোজাহিদুল ইসলাম (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৬৬. নওগাঁর এসপি পাবনার ইকবাল হোসেন (বিসিএস ১৮তম ব্যাচ), ৬৭. নাটোরের এসপি নেত্রকোনার সাইফুল্লাহ (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৬৮. বগুড়ার এসপি নেত্রকোনার মদন উপজেলার আশরাফ আলী (বিসিএস ২৪তম ব্যাচ), ৬৯. সিরাজগঞ্জের এসপি লক্ষ্মীপুরের টুটুল চক্রবর্তী (বিসিএস ২০তম ব্যাচ), ৭০. পাবনার এসপি গোপালগঞ্জের রফিক ইসলাম (বিসিএস ২০তম ব্যাচ)।

সিভিল প্রশাসনের যে ২২  কর্মকর্তার প্রত্যাহার চাইল বিএনপি:
নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদসহ জনপ্রশাসের ২২ জন কর্মকর্তার প্রত্যাহার চেয়েছে বিএনপি। তাদের বিতর্কিত উল্লেখ করে তাড়াতাড়ি প্রত্যাহার করে সব ধরনের দায়িত্ব থেকে অব্যাহিত দেয়ার দাবি জানায় দলটি। কী কারণে তাদের প্রত্যাহার করা দরকার তাও চিঠিতে উল্লেখ করা হয়।

নির্বাচন কমিশন সচিবের পদত্যাগের কারণ হিসেবে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, বিতর্কিত ও অতিমাত্রায় প্রচারমুখী। বিসিএস ৮২ বিশেষ ব্যাচের এবং ৮৪ পদের শতাধিক কর্মকর্তাকে ডিঙিয়ে তাকে সচিব পদে পদায়ন করা হয়। তিনি নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তাদের ডেকে নিয়ে গোয়েন্দা প্রতিবেদন দেখিয়ে ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন বলে বিভিন্ন সূত্র থেকে জেনেছি। তিনি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র মহীউদ্দীনের একান্ত সচিব ছিলেন। মহীউদ্দীনের ছেলে ব্যারিস্টার নওফেল এখন আওয়ামী লীগের নেতা। যিনি এখন আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি হিসেবে কমিশনে নিয়মিত যাতায়াত করেন। সচিবের নিরপেক্ষতা প্রশ্নবিদ্ধ।

অন্য কর্মকর্তারা হলেন-জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব ফয়েজ আহমেদ, জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিন, চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নান, খুলনার বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া, ভোলার ডিসি মো মাসুদ আলম সিদ্দিকী, চট্টগ্রামের ডিসি মো. ইলিয়াস হোসাইন, কুমিল্লার ডিসি মো. আবুল ফজল মীর ফেনীর ডিসি ওয়াহেদুজ্জামান, লক্ষ্মীপুরের ডিসি অঞ্জন চন্দ্র পাল, কিশোরগঞ্জের ডিসি সারোয়ার মোর্শেদ চৌধুরী, নরসিংদীর ডিসি সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন, টাঙ্গাইলের ডিসি মো শহিদুল ইসলাম, ঝিনাইদহের ডিসি সুরজ কুমার নাথ, খুলনার ডিসি হেলাল হোসাইন, কুষ্টিয়ার ডিসি মো. আসলাম হোসাইন, নড়াইলের ডিসি আঞ্জুমান আরা, ময়মনসিংহের ডিসি ড. শুভাস চন্দ্র বিশ্বাস, জয়পুর হাটের ডিসি মো. জাকির হোসাইন, নওগাঁর ডিসি মিজানুর রহমান, রাজশাহীর ডিসি আবদুল কাদের ও সিলেটের ডিসি কাজী ইমদাদুল হক।

তালিকা জমা দেয়ার পর সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, সরকারের এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশনের কোনো দায়িত্বশীল কর্মকর্তা আচরণবিধি লঙ্ঘন করছেন। তাদের জড়িত থাকার বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে উনাদের কাছে কিছু দালিলিক প্রমাণ উপস্থাপন করেছি। প্রমাণাদিসহ নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর সরকার কিংবা নির্বাচনী কোনো কর্মকর্তা যে কাজগুলো করতে পারেন না, সেই কাজগুলো অনবরত করা হচ্ছে। তার কয়েকটি উদাহরণ আমরা উনাদের সামনে তুলে ধরেছি এবং এগুলোর প্রতিকার চেয়েছি। ভবিষ্যতে যাতে এসব না ঘটে। আর যারা এসব করেছেন তাদের বিরুদ্ধে যেন ব্যবস্থা নেয়া হয়।
শীর্ষনিউজ/এসএসআই

Content Protection by DMCA.com

ইভিএম সংবিধান বিরোধী, ব্যবহার হলে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা: ঐক্যফ্রন্ট 

 

একাদশ জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার হলে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে সংবিধান লঙ্ঘনের অভিযোগে মামলা করার হুঁশিয়ারি দিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। ইভিএম সংক্রান্ত এক সেমিনারে ফ্রন্টের অন্যতম শীর্ষ নেতা ও জেএসডির সভাপতি আসম আবদুর রব এ হুঁশিয়ারি দেন। তিনি বলেন, আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই- কনস্ট্রিটিউশন বায়োলেশন (সংবিধান লঙ্ঘন) হবে ইভিএম ব্যবহার করলে। সংবিধানের বিরোধিতা হবে, রাষ্ট্রদ্রোহিতা হবে। এটা রাষ্ট্রীয় অপরাধ, সাংবিধানিক অপরাধ।

এটা যদি নির্বাচন কমিশন সরকারের আজ্ঞাবহ হয়ে ব্যবহার করতে যায় আমরা আমাদের নেতা সংবিধান প্রণেতা ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে সরকার ও নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে মামলা করবো।

আমি নির্বাচন কমিশনকে বলতে চাই, এটা সংবিধান বিরোধী, রাষ্ট্র বিরোধী, মামলা হবে; জেলে যাবেন। আমরা ছাড়বো, দেশের ১৮ কোটি মানুষ ছাড়বে না।

রাজধানীর গুলশান লেকশোর হোটেলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের উদ্যোগে ‘ইভিএমকে না বলুন, আপনার ভোটকে সুরক্ষিত করুন’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এ হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন। সেমিনারে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনে কিভাবে ভোট কারচুপি করা যায় একটি ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) প্রয়োগিক ব্যবহারে ভোট প্রদান করে তার ফলাফল উপস্থাপন করা হয়। সেখানে দেখানো হয় কিভাবে এক প্রতীকের ভোট অন্য প্রতীকের ঘরে জমা হয়।

সংবিধানের ৬৫ অনুচ্ছেদের ২(এ) ধারা উল্লেখ করে রব বলেন, সেখানে বলা আছে সংসদ গঠন হবে জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে। মেশিনে প্রত্যক্ষ করা যায় না। সংবিধানের বলা আছে ডাইরেক্ট (প্রত্যক্ষ) ভোটে সরকার গঠন করতে হবে। প্রশ্নবিদ্ধ ইভিএম এই শর্ত পুরণ করে না। তাই সংবিধান সংশোধন করা ছাড়া ইভিএম ব্যবহার করা যাবে না। প্রত্যক্ষ ভোটের একটি প্রধান শর্ত যে ভোট প্রদান থেকে শুরু করে সর্বশেষ ভোট গণনা পর্যন্ত সকল নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় জনগনের কাছে উন্মুক্ত থাকতে হবে। ইভিএমের বর্তমান প্রস্তাব ও কাঠামো বাংলাদেশের মতো দেশে প্রচন্ডভাবে অগণতান্ত্রিক। জনগণের কাছে এই মেশিনের স্বচ্ছতা নেই, উন্মুক্তও নয়। তিনি বলেন, আমরা ইভিএম ব্যবহার করতে পারবে না, করতে দেবো না। ভোটার ও জনগণ করতে দেবে না। রব বলেন, বাংলাদেশে আমরা কোনো রাজনৈতিক দল, ভোটার ও জনগন ইভিএম ব্যবহার চাইনি।

আমরা যারা নির্বাচনের অংশীদার, যারা নির্বাচন করবো, করাবো, ভোট দেবো, জয়লাভ করবো, সরকার গঠন করবো, আমরা কেউ চাইলাম না। আপনি নির্বাচন কমিশন এতো এডামেন্ট কেনো? আসল ঘটনা হলো আপনি গতবারের ১০ হাজার টাকার মেশিন এবার ২ লাখ টাকা দিয়ে কিনেছেন। হারামটা জায়েজ করার জন্য, টাকাটা খাওয়ার জন্য। জার্মানী, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন উন্নত দেশে ইভিএম বন্ধ হয়ে যাওয়ার ঘটনা তুলে ধরেন আসম আবদুর রব বলেন, ইভিএমের মাধ্যমে ক্ষমতাসীনরা ভোট জালিয়াতি করবে। ইভিএমে ভোট করতে দেয়া হবে না, আপনারা করতে পারবেন না। তারা বলছে, শহর অঞ্চলে সীমিত পর্যায়ে ইভিএম ব্যবহার করবে। আসলে শহরে অঞ্চলে সচেতন ভোটারদের ভোটগুলো জালিয়াতির জন্যই তাদের এই চেষ্টা।

/শীর্ষনিউজ

Content Protection by DMCA.com

‘বাংলাদেশে ভোট কঠিন পরীক্ষার মুখে হাসিনা’

ভারতের ‘ইনসেপ নাউ’ নিউজ পোর্টালের খবর

বাংলাদেশে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন শেখ হাসিনার জন্য কঠিন পরীক্ষা হবে বলে জানিয়েছে ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যম। গত রোববার ‘ইনসেপ নাউ’ নামে একটি নিউজ পোর্টালে ‘বাংলাদেশে ভোট, কঠিন পরীক্ষার মুখে হাসিনা’ এই শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ করা হয়।
প্রকাশিত সংবাদে বলা হয়, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও প্রধান বিরোধী দল বিএনপি এবং নব গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট শিবিরে বইছে নির্বাচনী হাওয়া। যার ফলে কোনো কোনো আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীর সংখ্যা পঞ্চাশের ঊর্ধ্বে পৌঁছানোয় খোদ দলীয় প্রধান ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। মাত্র পাঁচ বছরের ব্যবধানে দেশে এতো নেতার জন্ম হলো কী করে তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।

যখন একজন ক্ষমতাসীন এমপির বিরুদ্ধে ২০-২৫ জন প্রার্থী দাঁড়িয়ে যান, তখন কারোরই বুঝতে অসুবিধা হয় না যে তিনি নেতা-কর্মীদের কাছে কতোটা অপছন্দের। অনেক মনোনয়ন প্রত্যাশীর মধ্য থেকে একজনকে বেছে নেওয়াই ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের প্রথম চ্যালেঞ্জ। বর্তমান সংসদের সব সদস্যের ভাগ্যে যে এবার মনোনয়নের শিকে ছিঁড়বে না, সে কথা আগেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে বিএনপি বিগত ১২ বছর ধরে ক্ষমতার বাইরে থাকায় তাদের দলীয় কোন্দল ক্ষমতাসীনদের থেকে অপেক্ষাকৃত কম। যদিও জোট শরিকদের সঙ্গে আসন ভাগাভাগি নিয়ে দুই প্রধান দলকেই বড় ধরনের ঝামেলা পোহাতে হবে। শ্যাম রাখি না কুল রাখি অবস্থা।

মনোনয়ন প্রত্যাশীদের নিয়ে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি অফিসের সামনে মিছিল হয়েছে, রাস্তা বন্ধ করে নেতা-কর্মীরা শোডাউন করেছেন। আবার এই শোডাউনকে ঘিরে প্রাণহানি, যানবাহনে আগুন, সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে। প্রথমে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ অফিসে তিন-চার দিন ধরে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের শোডাউন চললেও নির্বাচন কমিশন তখন টুঁশব্দটিও করেনি। এরপরেই যখন বিএনপির অফিসের সামনের ব্যস্ততম সড়ক বন্ধ করে নেতা-কর্মীরা দুই দিন ধরে শোডাউন করলেন, তারা তখনো তারা নিশ্চুপ ছিলো। কিন্তু তৃতীয় দিনে নির্বাচন কমিশন পুলিশ কর্তৃপক্ষকে এই মর্মে চিঠি দেয় যে এভাবে রাস্তায় মিছিল করে মনোনয়ন জমা নেওয়া নির্বাচনী আচরণ বিধির ৮ নম্বর ধারার সুস্পষ্ট লঙ্ঘন, তারা যেনো ব্যবস্থা নেয়।
এই চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ নড়েচড়ে বসে এবং বিএনপি নেতা-কর্মীদের রাস্তা থেকে উঠিয়ে দিতে গেলে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বিএনপি অফিসের সামনে পুলিশের গাড়িতে আগুন দেওয়া, গাড়ি ভাঙচুর করার দায়ে বিএনপির ৪৮৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে, ৬৬ জন নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করে এবং ৩৬ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডে নেয়। তারা প্রখ্যাত সংগীত শিল্পী বেবী নাজনীনকে আটক করলেও পরে ছেড়ে দেয়। তিনি বিএনপির একজন সম্ভাব্য প্রার্থী।

নয়াপল্টনে পুলিশের গাড়িতে আগুন দেওয়ার কারণে হুকুমের আসামি হিসেবে বিএনপির কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতার বিরুদ্ধেও মামলা করা হয়েছে। কিন্তু আদাবরে আওয়ামী লীগের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে দুজন মানুষ মারা যাওয়ার পরও আওয়ামী লীগের কোনো নেতার বিরুদ্ধে মামলা হয়নি বলে অভিযোগ বিরোধীদের।

এটা স্পষ্ট যে বাংলাদেশের রাজনৈতিক বাস্তবতায় এবারের নির্বাচনটি নির্বাচন কমিশন এবং প্রতিদ্ব›দ্বী দল ও প্রার্থীদের জন্য চ্যালেঞ্জ তো বটেই। তার চেয়েও বড় চ্যালেঞ্জ হলো নির্বাচনকালীন সরকারের জন্য। ৩০শে ডিসেম্বর প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে দলীয় সরকারের অধীনে এবং জাতীয় সংসদ বহাল রেখে সব দলের অংশগ্রহণে একটি সংসদ নির্বাচন হতে যাচ্ছে। এই অভিজ্ঞতা ভোটারদের কাছে প্রথম, নির্বাচন কমিশনের কাছে প্রথম, এমনকি নির্বাচনকালীন দলীয় সরকারের কাছেও প্রথম। সংশ্লিষ্ট সবাই কথাটি মনে রাখলে সমস্যা অনেক কমে যাবে, আর না রাখলে কিংবা কোনো পক্ষ থেকে ব্যত্যয় ঘটানোর চেষ্টা হলে সমস্যা আরও বাড়বে এবং তা নিয়ন্ত্রণেরও বাইরে চলে যেতে পারে।

আওয়ামী লীগের জন্য এই নির্বাচন ভীষণ কঠিন পরীক্ষা এ কারণে যে, প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী নির্বাচনকে অবাধ ও সুষ্ঠু করতে হলে বর্তমান নির্বাচনকালীন দলীয় সরকারকেই ‘নির্দলীয়, নিরপেক্ষ সরকার’ এর ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে হবে। সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য শুধু মন্ত্রী ও এমপিদের নির্বাচনী আইন ও আচরণবিধি মেনে চললে হবে না, সেই আইন অনুযায়ী জনপ্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদেরও চালিত করতে হবে। অন্যথায় সব ব্যর্থতার দায় নির্বাচনকালীন সরকারের ওপরই বর্তাবে।

নির্বাচনটি দলীয় সরকারের অধীনে হওয়ায় দেশের মানুষ, বিদেশের বন্ধু ও সুহৃদেরা এর ওপর তীক্ষ্ন নজর রাখছে। গত বৃহস্পতিবার ইউরোপীয় পার্লামেন্টে বাংলাদেশ বিষয়ক বিতর্কে অংশ নিয়ে সদস্যদেশের প্রতিনিধিরা বাংলাদেশে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সঙ্কুচিত হওয়ায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তাঁরা বলেছেন, ‘আসন্ন জাতীয় নির্বাচন বাংলাদেশের জন্য অনেক দিক থেকেই গুরুত্বপূর্ণ। এই নির্বাচনই শেষ সুযোগ, যেখানে নির্ধারিত হবে বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক ধারা ও আইনের শাসন অব্যাহত থাকবে, নাকি পরিস্থিতি অরাজকতা আর বিশৃঙ্খলার দিকে ধাবিত হবে’।
আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনটি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কাছে একটি বড় চ্যালেঞ্জ মানুষ নির্ভয়ে ভোট দিতে যেতে পারবে কিনা। প্রতিটি ভোটকেন্দ্র ও বুথে প্রতিদ্বদ্বী প্রার্থীর নির্বাচনী এজেন্টরা উপস্থিত থাকতে পারবেন কিনা।

নির্বাচন নিয়ে এখন সর্বত্র আলোচনা, গুঞ্জন। সবার জিজ্ঞাসা, নির্বাচনটি ঠিকঠাক মতো হবে তো? অতীতে বাংলাদেশে যতোগুলো একতরফা নির্বাচন হয়েছে, তার জন্য নির্বাচন বর্জনকারীরা যতোটা না দায়ী, তার চেয়ে বেশি দায়ী নির্বাচন আয়োজনকারীরা। ২০০৭ সালে বিএনপি ‘সংবিধানসম্মত নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে’ দলীয়ভাবে ব্যবহার করতে গিয়ে নির্বাচনটিই শুধু ভন্ডুল করেনি, তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থাকেও ধ্বংস করেছিলো।

এবার আওয়ামী লীগ একই সঙ্গে নির্বাচনে অন্যতম প্রতিদ্ব›দ্বী এবং নির্বাচন পরিচালনাকারীর ভূমিকায় আছে। নির্বাচন পরিচালনাকারী হিসেবে তাকে শুধু নিরপেক্ষভাবে কাজ করলেই হবে না, সেটি বাংলাদেশের জনগণে এবং বিশ্ববাসীর কাছেও বিশ্বাসযোগ্য করে তুলতে হবে। নির্বাচনটি অবাধ ও সুষ্ঠু হলে, জনগণ আওয়ামী লীগকে টুপি খুলে অভিনন্দন জানাবে। কিন্তু নির্বাচনটি সুষ্ঠু, অবাধ ও শান্তিপূর্ণ না হলে সবকিছু ওলটপালট হয়ে যেতে বাধ্য। যার ফলে অসাংবিধানিক শক্তির ক্ষমতায় আসা নিশ্চিত এবং গ্রহণযোগ্য করে তুলবে।

এদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, গ্রেট ব্রিটেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, কানাডা, অস্ট্রেলিয়াসহ যে সমস্ত দেশ বাংলাদেশকে শুল্ক ও বাণিজ্য সুবিধা প্রদান করে সে সমস্ত দেশ আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য না হলে বাংলাদেশে শুল্ক ও বাণিজ্য সুবিধা বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

জাতিসংঘ বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন সরকারকে স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছে, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন যদি সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য না হয় এবং এর ফলে যদি অসাংবিধানিক শক্তি ক্ষমতায় আসে তাহলে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী বাহিনীতে কর্মরত বাংলাদেশীদের ব্যাপারে নতুন করে তাদের ভাবতে হবে। সব দিক বিবেচনা করলে বাংলাদেশের বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকারের কাছে এই নির্বাচন যে কতো বড় চ্যালেঞ্জ তা শুধু দেশেই নয় আন্তর্জাতিক স্তরেও আলোচিত।
/ইনকিলাব

Content Protection by DMCA.com
1 2 3 4 30