মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে যে কৌশলের খেলায় জিতল বিএনপি

মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে বিএনপির কৌশলের জয় হয়েছে। যদিও প্রকাশ্যে বিএনপি নেতারা বাছাইয়ের ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশন এবং রিটার্নিং অফিসারদের বিরুদ্ধে পক্ষপাতের অভিযোগ আনছেন। কিন্তু বিএনপির একাধিক শীর্ষ নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এমন আশঙ্কাই তাঁরা করেছিলেন। নির্বাচনে বিএনপি ৬৯৬ জন প্রার্থী দেওয়া নিয়ে আলোচনা সমালোচনা হয়েছে। বলা হয়েছে, প্রতীক বরাদ্দে বিএনপির কোন্দল বাড়বে। আওয়ামী লীগ এই প্রতীক বরাদ্দ নিয়ে হাসি-ঠাট্টা করেছে। কিন্তু বিএনপি জানতো, এরকম একটি পরিস্থিতি হবে।

বিএনপির একজন দায়িত্বশীল নেতা বলেছেন, ‘আমরা চেয়েছিলাম, শেষ পর্যন্ত যেন ‘ধানের শীষ’ প্রতীক দেওয়ার মতো অন্তত একজন প্রার্থী থাকে। ঢাকা-১ আসন এবং চট্টগ্রাম-৮ ছাড়া সব আসনেই বিএনপির কেউ না কেউ টিকে গেছে। ঢাকা-১ আসনে বিএনপি দু’জনকে মনোনয়ন দিয়েছিল। এরা হলেন, খন্দকার আবু আশফাক এবং ফাহিমা হোসেন জুবলী। অবশ্য এই আসনের বর্তমান এমপি সালমা ইসলাম স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়েছেন। তাঁর মনোনয়ন বৈধ হয়েছে।

তিনি বিএনপিতে যেতে পারেন বলে গুঞ্জন রয়েছে। আর চট্টগ্রাম-৮ আসনে প্রার্থী হয়েছিলেন শুধু মোর্শেদ খান। ঢাকা-২ আসনে আমানউল্লাহ আমানের মনোনয়ন যে বাতিল হবে, তা আপিল বিভাগের আদেশের পরেই নিশ্চিত হয়ে যায়। এখানে আমান তাঁর ছেলে ইফরান ইবনে আমানকেও মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ান। ফলে এই আসনটিতে বিএনপির কোনো ক্ষতি হয়নি। ঢাকা-৫ আসনে বিএনপির অধ্যক্ষ সেলিম বাদ পড়েছেন। এই আসনে নবী উল্লাহ নবীই ছিলেন বিএনপির মূল প্রার্থী।

তিনি টিকে গেছে। ঢাকা-৬ থেকে সাদেক হোসেন খোকার ছেলে বাদ পড়লেও, সেখানে কাজী আবুল বাশার বিকল্প প্রার্থী ছিলেন এবং তাঁর মনোনয়ন বৈধ হয়েছে। ঢাকা-৯ তেও মির্জা আব্বাসের স্ত্রীর মনোনয়ন বাতিল হলেও বিকল্প প্রার্থী হাবিবুর রশিদ হাবিবের মনোনয়ন বৈধ হয়েছে। চট্টগ্রাম-৫ এ মীর নাসির উদ্দিনের আসনেও বিএনপি তিনজনকে প্রাথমিক মনোনয়ন দেন। এদের মধ্যে মীর নাসির এবং তাঁর ছেলে মীর হেলালের মনোনয়ন বাতিল হলেও ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানার মনোনয়ন বৈধ হয়েছে।

বগুড়া-৭ আসনেও বিএনপি তিনজন প্রার্থীকে প্রাথমিক মনোনয়ন দেয়। বেগম জিয়ার মনোনয়ন নিয়ে বিএনপির মধ্যে সংশয় ছিল, দ্বিতীয় প্রার্থী মোরশেদ মিল্টনের ওপরও তারা ভরসা রাখতে পারেননি। দুজনই মনোনয়নই বাতিল হয়েছে। ওই আসনে তৃতীয় বিকল্প প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ হয়েছে। তিনি সরকার বাদল।

বিএনপির একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মূলত দুই কারণে বিএনপির একাধিক প্রার্থীকে প্রাথমিক মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল। প্রথমত, বিএনপি জানতো দণ্ড, ঋণ খেলাপি ইত্যাদি কারণে অনেক প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হতে পারে। সেজন্য প্রায় সব আসনেই বিএনপি বিকল্প প্রার্থী রেখেছিল।

দ্বিতীয়ত, এর ফলে বিএনপিতে বিদ্রোহী প্রার্থীর শঙ্কা দূর হলো। মনোনয়ন বাছাইয়ের পর এখন কেন্দ্র থেকে যাঁকে ধানের শীর্ষ প্রতীক দেওয়া হবে, একমাত্র তিনিই নির্বাচন করতে পারবেন। বাকীদের স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার কোনো আইনগত সুযোগ থাকবে না। ফলে, বিএনপিতে বিদ্রোহী প্রার্থী থাকবে খুবই কম। তাই বলাই যায়, কৌশলের খেলায় প্রথম দফায় বিএনপি জিতে গেল।

Facebook Comments
Content Protection by DMCA.com

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.