সিনহার বইয়ে নানা অভিযোগ এবং নারী ঘটিত কেলেঙ্কারী : আবেদীনের পরিবারে ঝড়!

সামরিক গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তরের প্রধান মেজর জেনারেল সাইফুল আবেদীনকে নিয়ে বিভিন্ন মিডিয়ায় এবং সামাজিক মাধ্যমে নানাবিধ খবরের পরে রেশ বইছে তার ডিপার্টমেন্ট এবং পরিবারে। এ নিয়ে নিজ গৃহে চলছে বিবাদ। স্ত্রী ফাতেমা-তুজ-জোহরা ক্যামেলিয়া চড়াও হয়েছে আবেদীনের ওপরে। কথা বলে অভিযোগ করেছেন তার বন্ধু বান্ধব ও স্বজনদের সাথে। এর মধ্যে সাবেক ক্লাশমেট তুরিন আফরোজও আছেন। সাংঘতিক সে ক্যাচাল পরিবারের গন্ডি ছাড়িয়ে বাইরে চলে এসেছে।

বন্ধুবান্ধব সূত্রে জানা গেছে, স্ত্রী ক্যমেলিয়া বলেছেন,”তোমার এইসব অপকর্মের খবর ছড়িয়েছে সারা দেশে, এখন মুখ দেখাব কিভাবে। বিশেষ করে ক্যান্টনমেন্টে ভাবীরা এ নিয়ে মুখরোচক আলোচনায় ব্যস্ত। ক্লাব পার্টি সব শেষ। এনিয়ে তোমাকে বহুত মানা করেছি, কিন্তু তুমি আর ভালো হলে না। শেষ পর্যন্ত মেয়ের চেয়েও ছোট বয়সী নিয়ে!! ছি ছি ছি! তোমার কি ভীমরতিতে ধরেছে। আমি আর পারছি না।”

অন্যদিকে আবেদীন সাহেবও স্ত্রীর ওপর পাল্টা চোটপাট নেন, “এই সামান্য বিষয় নিয়ে বাড়াবাড়ি করে তুমিই বড় করেছে! এক কান দু’কান ঘুরে এখন রাষ্ট্র হয়েছে। তোমাদের মেয়েদের নিয়ে এই এক বিপদ। নিজেরা যা বোঝো, সেটা নিয়েই থাকো। প্রফেশনের জন্য আমাকে কত যায়গায় যেতে হয়, কতকিছু করতে হয়, অথচ তোমরা থাকো বিছানা আর মেয়েলী ইস্যু নিয়ে! এখন ডিপার্টমেন্ট আমার মুখ দেখানোই দায় হয়ে পড়েছে।”

পরিবারিক বন্ধু কর্নেল পদমর্যাদার এক অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান, “পারিবারিক কলহের খবর পেয়ে আমরা ছুটে যাই, কিন্তু পারিবারিক বিবাদের মধ্যে কতটা আর কি করা যায়? তাও আমরা বুঝিয়ে এসেছি। ভাবী তো ভীষন ক্ষেপে গেছেন। বাপের বাড়ি চলে যাওয়ার হুমকি দিয়ে রেখেছেন। এমনকি আমেরিকাতে মেয়ের কাছেও চলে যেতে পারেন। যাই হোক, ছেলের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে তাদেরকে মানিয়ে চলার পরামর্শ দিয়ে এসেছি।”

নাম না প্রকাশ করার শর্তে সংস্থাটির এক কর্মকর্তা জানান, ডিজি ভীষন ডিস্টার্বড। অফিসারদের উপর চড়াও হচ্ছেন কারনে অকারনেই। এসব খবরের সুত্র বের করার জন্য তিনি সর্বতোভাবে লাগার হুকুম জারী করেছেন। আইটি বিভাগেকে কড়া নির্দেশ দিয়েছেন এর সোর্স বের করতে, কারা কোত্থেকে এত খবর প্রকাশ করে। অন্যদিকে ডিপার্টমেন্টের কিছু কিছু অফিসারদের প্রতি নজরদারী বাড়ানো হয়েছে। ফোন কল এবং নেট কানেকশন পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হচ্ছে। ডিপার্টেমেন্টর ভিতরে চলছে জরুরী অবস্থা। ডিজি এখন ভয়ে আছেন, কখন প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে ডাক পড়ে।

DISCLAIMER: This is an investigative report by BD Politico Team. We reserve the right to protect our sources by law.

Photo source: Facebook

Facebook Comments
Content Protection by DMCA.com

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.