আওয়ামী লীগে মৃত্যু আতংক, বিদেশে পালিয়ে যেতে পারে লক্ষ লক্ষ নেতা কর্মী

নির্বাচনের দিন যত ঘনিয়ে আসছে আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীদের মধ্যে আতংক দিন দিন ততই বাড়ছে। কেন্দ্রীয় নেতা থেকে শুরু করে তৃণমূল পর্যন্ত সবার মুখে শুধু একটা কথাই উচ্চারিত হচ্ছে “এবার ক্ষমতা হারালে দুই থেকে তিন লক্ষ নেতা কর্মী মারা যাবে”। কে কে সেই টার্গেটে পড়বে, কে কে সমস্যায় পড়তে পারে চলছে সেই সব হিসাব কিতাবও।

এর আগে দলীয় সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদের নিজ দলের নেতাকর্মীদের চরম হুশিয়ারি দিয়েছেন, দল ক্ষমতায় না আসলে টাকা পায়সা নিয়ে পালাতে হবে। দক্ষিন চট্টগ্রামের আওয়ামীলীগ সভাপতি মোসলেমউদ্দিন অারও স্পষ্টভাবে বলেছেন, ক্ষমতা হারানোর প্রথম রাতেই পাঁচ লাখ লাশ পড়বে। অন্যদিকে সিনিয়র নেতা ও বানিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমদ গত মাসেই বলেছেন, ক্ষমতা হারালে প্রথম রাতেই লাখ খানেক লীগ নেতা কর্মী মারা যাবে। এ খবর দলের ভেতরে দারুণ ভাবে প্রচার হয়েছে। দলের নেতাকর্মীরা বুঝতে পারছেন, সেই সময় এখন সমাগত। ঐক্যজোট হওয়ার পরে এখন আওয়ামীলীগের ক্ষমতা হারানো সময়ের ব্যাপার মাত্র। যদিও দলের নেতারা ফাঁকা আওয়াজ দিয়ে এবং ক্রমাগত ভারত নির্ভর হয়ে বলতে চাচ্ছেন েযে, সব ঠিক আছে। কিন্তু মাঠে ময়দানের কর্মীরা বুঝতে পারছে, কিছুই আর ঠিক নাই। এবার ক্ষমতা হারাতে হবে- সেটা ঐক্যজোটের কাছে হোক, বা মিলিটারীর কাছে হোক। মিলিটারী ক্ষমতা নিলে যে কারো পিঠের চামড়া থাকবে না, তার বড় প্রমান ১/১১র সময়ে বিএনপির নেতাকর্মীরাি উদাহরণ হয়ে আছেন!

গত দশ বছরে যারা বেশী বাড়াবাড়ি করেছে তাদের অনেকে আবার নিজ দলের নেতা কর্মীদের রোষানলে পড়েছে। অন্য দিকে হঠাৎ অন্য দল থেকে আওয়ামীলীগে আসা হাইব্রীড উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নেতা কর্মী নিজদলের কর্মীদের দ্বারাই টার্গেটেড হয়ে আছেন। তাদের মতে হাইব্রিড নেতা কর্মীরা দলে এসে দলের সুবিধাভোগী অংশের ছত্রছায়ায় হেন অপকর্ম নেই যা তারা করেননি। হাইব্রিড নেতা কর্মীদের দ্বারা বিরোধী দলের নেতাকর্মীরাতো নির্যাতিত হয়েছেনই, ওদের কারণে নিবেদিতপ্রাণ দলীয় নেতাকর্মীরা কোনঠাসা হয়ে পড়েছিল বলে তারা মনে করেন। তাই বিরোধী দল দ্বারা হাইব্রিডরা আক্রান্ত হলে তার দায় অন্যরা নিবে না বলে তারা ইতিমধ্যে দলের হাইকমান্ডে জানিয়ে দিয়েছে।

পরিস্থিতি একটু ঘোলা দেখলেই আওয়ামীলীগের হাইব্রিড নেতা কর্মীরা নিজ দলের দ্বারাই বেশী আক্রান্ত হবেন দলের নীতি নির্ধারণী পর্যায় থেকে এমন আশংকাও করা হচ্ছে। প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে আওয়ামীলীগের লোকেরা নিজদলের প্রতিপক্ষ গ্রুপের নেতা কর্মীদের খুন করে বিরোধী দলের উপর দায় চাপাবেন বলে অনেকেই মনে করছেন। তাই এবার নির্বাচনের আগে আওয়ামীলীগের লক্ষ লক্ষ নেতা কর্মী জীবন বাঁচাতে এলাকা ছেড়ে অন্য এলাকায় বা যাদের সুযোগ আছে তারা বিদেশে পালিয়ে যেতে পারে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।
/চ্যানেল ১৯ নিউজ

Facebook Comments

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.