মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সাথে ব্যক্তিগত যুদ্ধে নেমেছে সরকার: এয়ারপোর্ট থেকে ব্যাগ চুরি: এর আগে গায়ে হাত দেয় সরকারী সন্ত্রাসীরা!

যুক্তরাষ্ট্রের হেডকোয়ার্টারে কাজ শেষে গত সপ্তাহে ঢাকায় ফেরার পথে মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বানিক্যাট শাহজালাল আন্তর্জাতিক এয়ারপোর্ট কাস্টমস এলাকা থেকে লাগেজ চুরির শিকার হন।

জানা গেছে, ঢাকা এয়ারপোর্টের কনভেয়ার বেল্ট থেকে রাষ্ট্রূদূতের ব্যক্তিগত একটি ব্যাগ হাওয়া করে দেয়ার ঘটনায় জড়িত ছিল রাষ্ট্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন। ঐ ব্যাগে নাকি সরকার বদলের ‘ফরমুলা’ থাকতে পারে এমন ধারণা ছিল টিকটিকিদের! কিন্তু তারা বুঝতে পারেনি- ফরমুলা ওভাবে থাকেওনা, আসেওনা! ব্যাগ চুরির ঘটনাটি মিডিয়াতে চাপা দেয়া হয়েছে। তবে বিষয়টি নিয়ে ভিতরে ভিতরে তুলকালাম কান্ড চলছে। সরকার হাতে পায়ে ধরে মাফ চেয়েও কাজ হচ্ছে না! ফরমুলা তো পাওয়া যায়নি, উল্টো এখন ব্যাগ চুরির দায়ে অভিযুক্ত হয়েছে সরকার!

অন্যদিকে,  গত ৪ আগস্ট ঢাকার মোহাম্মদপুরে সরকার দলীয় সন্ত্রাসীরা মার্কিন রাষ্ট্রদূতের গাড়িতে হামলার সময়ে রাষ্ট্রদূত বার্নিকাটের ওপরে ব্যক্তিগতভাবে হামলা হয়েছিল। সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা রাষ্ট্রদূতের গায়েও হাত দিয়েছিল। ঐরাতে সুজন সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারের মোহাম্মদপুরের ইকবাল রোডের বাসায় অন্যান্য অতিথিদের সাথে রাষ্ট্রদূত বার্নিকাটও নৈশভোজে যোগ দিয়েছিলেন। ভোজ শেষে রাত ১১ নাগাদ ওই বাড়ি থেকে বের হওয়ার আগেই একদল সশস্ত্র যুবক বাড়ির ভেতরে ঢুকে পড়ে। এ সময় কয়েকটি মোটরসাইকেলও ছিল। সন্ত্রাসীরা রাষ্ট্রদূতকে বহনকারী গাড়িতে হামলা চালায় এবং গাড়ি ভাঙচুর করে, হামলাকারীদের মধ্যে একজন রাষ্ট্রদূতরকে গায়ে ধাক্কা দিয়ে গাড়িতে তুলে দেয়।

বিষয়গুলো খুব কঠোরভাবে দেখছে মার্কিনরা। 
বিএনপির আমলে সিলেটে আনোয়ার চৌধুরীর ওপর বোমা হামলার ঘটনায় বিএনপির উদাসীনতায় যেভাবে ক্ষমতা হারাতে হয়েছিল, বার্নিক্যটের গাড়িতে হামলা, এমনকি তাঁর গায়ে হাত দেয়া, সবশেষে ব্যাগ চুরি করা- সব মিলিয়ে শেখ হাসিনার কপাল পুড়ছে, বলে জানিয়েছে সূত্রগুলো।

Facebook Comments

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.