মোদির সাথে একান্ত বৈঠক করতে না পেরে হতাশ হাসিনা!

বাংলাদেশের বিনাভোটের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত বৃহস্পতিবার নেপালের কাঠমুন্ডুতে গিয়েছেন বিমসটেক সম্মেলনে অংশ নিতে। সেখানে গিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে একান্ত বৈঠক করার চেষ্টা করেছিলেন শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার ঢাকা ছাড়ার আগ পর্যন্ত শেখ হাসিনা ও তার মন্ত্রীদের আশা ছিল – মোদি টাইম দিবেন। কিন্তু দেননি! এতে মারাত্মক হতাশ হয়ে পড়েছেন শেখ হাসিনা।

নেপালে মোদির সঙ্গে শেখ হাসিনার সৌজন্য সাক্ষাৎ

শেখ হাসিনার পররাষ্ট্র মন্ত্রী এবং প্রতিমন্ত্রী দু’জনেই অবশ্য শেষ সময় অবধি আশায় ছিলেন- বৈঠক হবে। তারা মিডিয়াকেও জানিয়েছিলেন মিটিং হবে, তবে প্রোগ্রাম পাওয়া যায়নি বিধায় জোর দিয়ে বলতে পারেননি। ঢাকায় আওয়ামীলীগের নীতিনির্ধারকরাও মোদি-হাসিনার ওই সম্ভাব্য বৈঠকের আশায় অপেক্ষমান ছিলেন। বিশেষ করে বাংলাদেশের আগামী জাতীয় সংদের নির্বাচনের আগে নরেন্দ্র মোদির সাথে এমন একটি বৈঠক আওয়ামীলীগের প্রাণশক্তির জন্য সহায়ক হতো। কিন্তু মোদির সাথে কোনো একান্ত বৈঠক তো হয়ইনি, পরিবর্তে বৃহস্পতিবার নেপালের কাঠমান্ডুতে হোটেল সোয়ালটি ক্রাউন প্লাজায় চতুর্থ বিমসটেক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সাইডলাইনে আরও দু’টি দেশের শীর্ষনেতাদের উপস্থিতিতে প্রায় দেড় ডজন মানুষের সামনে নরেন্দ্র মোদির সাথে স্রেফ সৌজন্যমূলক কথাবার্তা বলার সুযোগ মিলেছে শেখ হাসিনার। যদিও মুখ রক্ষার জন্য বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে মিডিয়াতে বলা হয়েছে- দ্বিপাক্ষিক বৈঠক, কিন্তু বাস্তবে সৌজন্য দেখা নিয়েই হাসিনাকে ঢাকায় ফিরতে হয়েছে! ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শেখ হাসিনার এমন হতাশাজনক সাক্ষাৎ এর আগে কখনও হয়নি।

ঢাকায় সরকারের নীতি নির্ধারকেদের একটি সূত্র জানায়, বিমসটেকে শেখ হাসিনা যাওয়ার মূল কারনই ছিলো মোদির সাথে বৈঠকের সুযোগ নেয়া। আর এতে করে চলমান বাংলাদেশে ক্ষমতা পরিবর্তনের লক্ষে ড. কামাল হোসেনকে কেন্দ্র করে যেসব কর্মকান্ড চলছে, তাতে যেনো ভারতের কোনো সাপোর্ট না থাকে, বিষয়টি নিশ্চিত করতে চেয়েছিলেন শেখ হাসিনা। কিন্তু মোদির সাথে একান্ত বৈঠক না হওয়াতে শেখ হাসিনা মারাত্মক মর্মাহত, এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রী মাহমুদ আলী ও দিল্লিতে রাষ্ট্রদূত মোয়াজ্জেম আলীর উপর চটেছেন। এদিকে খবর চাউর হওয়াতে বাংলাদেশে ক্ষমতার বদল নিয়ে মার্কিন পরিকল্পনা সংক্রান্ত খবরের পালে হাওয়া লেগেছে।

গেলাম কি আশায় …. আর হইলটা কি? আশায় গুড়ে বালি!

Facebook Comments

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.