ধিক্কার! ভেবে অনুতপ্ত হই কেন শিক্ষকতায় এলাম! এ লজ্জা কার? সরকারের নাকি ভিসির?

ছবিগুলো দেখে বুঝতে সমস্যা হওয়ার কথা নয়: আঙ্গুল তুলে শিক্ষককে শিক্ষা দিচ্ছেন যিনি তার নাম ছাত্রলীগ

অধ্যাপক তানজীমউদ্দিন খান ঢাকা বিশ্ববিদ্যলয়ের শিক্ষক। তিনি তার শিক্ষার্থীদের নিপীড়ন থেকে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন মাঝখানে দাঁড়িয়ে। আঙ্গুল তুলে শিক্ষককে শিক্ষা দিচ্ছেন যিনি তার নাম ছাত্রলীগ। দ্বিতীয় ছবিতে শিক্ষককে যিনি ঘুষি মারতে যাচ্ছেন, তার নামও ছাত্রলীগ।

ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের হাতে নাজেহালের শিকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষক তানজীম উদ্দিন খান এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, মনুষ্যত্ব হারিয়ে যাওয়া শিক্ষকেরা প্রশাসনিক নেতৃত্বে আছে বলেই আমরা শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা কেউ নিরাপদ নই এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে।

শুধু আমাদের নাজেহাল আর শারীরিক আক্রমনই করেনি, ছাত্রলীগের তিনজন মাস্তান ভয় দেখানোর জন্য আমার বাসা পর্যন্ত মটর সাইকেলে চেপে আর দুজন পদব্রজে অনুসরণ করতে করতে এসেছে! এদের একজন আবার মোবাইল ফোন দিয়ে ক্রমাগত ছবি তুলছিলো!

আর ‘মহামান্য’ প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রাব্বানী বললেন, আমরা সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিয়ে যা খুশি তা করতে পারি না! প্রক্টরিয়াল বডিকে না জানিয়ে কেন শহীদ মিনারে গেলাম? ধিক্কার! ভেবে অনুতপ্ত হই কেন শিক্ষকতায় এলাম! আমাদের কেউ বা আমাদের পরিবারের কেউ কোন রকম শারীরিক বা মানসিক আক্রমনের শিকার হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কর্তৃপক্ষ পুরোপুরি দায়ী থাকবে।

Facebook Comments

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.