ইতিহাসের কোন ঠিকানায় লেখা হবে হাসিনার নাম? 

নাৎসিজম থেকে ফ্যাসিজম- ফ্যাসিজম থেকে হাস্সিজম?
হাতুড়ি পেটাওয়ালী?
ছাত্র গুম করনেওয়ালী?
কোটা বাতিলের ঘোষণা দিয়ে ছাত্রদের উপর হামলাকারী?
অান্দোলনকারী ছাত্রদের নামে মিথ্যা ফৌজদারী মামলাদানকারী?
ছাত্রীদের উপর নিজ ছাত্রসংগঠন লেলিয়ে দিয়ে প্রকাশ্যে শ্লীলতাহানি?
ছাত্রদের গ্রেফতার করে রিমান্ডে নেয়া?
মারাত্মক আহত করার পরও চিকিৎসা না দিয়ে হাসপাতাল থেকে বের করে দেয়া?
এমন ভয়াবহ অবস্থা তৈরী করেছে যে আহতরা কেউ প্রকাশ্যে চিকিৎসা নিতে পারছে না?
যে ছাত্রলীগের গুন্ডারা হামলা করলো, হাসিনা কাউকে থামিয়েছে?
এরেস্ট করতে বলেছে?
তাদের নামে কোনো মামলা দিয়েছে?
নাকি পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নিয়েছে?
হাসিনা কি আগামীতে রাজনীতি করবে না?
নৌকার জন্য কি ভোট লাগবে না?
এই লাখ লাখ ছাত্রছাত্রী কি থেমে যাবে?
তারা কি হামলা নির্যাতনের বদলা নিবে না?
হাসিনা কি তার উপযুক্ত জবাব পাবে না?
জবাব দিবে সময় এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়!

কোটা সংস্কার আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত ১১ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ: অনেককে পিটিয়ে আহত করেছে ছাত্রলীগ

সরকারি চাকরিতে পরীক্ষায় কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা নানামুখী চাপে অনেকটাই আড়ালে চলে গেছেন। শীর্ষস্থানীয় নেতাদের গ্রেপ্তারের ফলে নেতৃত্বশূন্য তারা। বিক্ষিপ্তভাবে বিভিন্ন শিক্ষাঙ্গনে বিক্ষোভ ও সমাবেশ হলেও আগের মতো অংশগ্রহণ নেই শিক্ষার্থীদের। সবার মধ্যে বিরাজ করছে ভয়-আতঙ্ক।

জানা যায়, কোটা সংস্কার আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত ১১ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে রয়েছেন রাশেদ খান, ফারুক হাসান, জসিমউদ্দিন, মশিউর, আমানুল্লাহ, মাজহারুল, জাকারিয়া, রমজান ওরফে সুমন, রবিন ও তারেক আদনান। একজন এখনো নিখোঁজ। নিখোঁজ ছাত্রের নাম মাহফুজ। অন্যদের পরিচয় এখনো পুলিশ নিশ্চিত করেনি। এর মধ্যে ফারুক হাসান শহীদ মিনারে মানববন্ধন করতে গেলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মারধর করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। রাশেদ খান তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় গ্রেপ্তার হয়ে পুলিশি হেফাজতে।

নেতাদের ফেসবুক আইডি ডিস-অ্যাবল করার পাশাপাশি ফেসবুকে কোটা সংস্কারপন্থীদের ফেসবুক গ্রুপটিও হ্যাক করে দখলে নিয়েছে সরকারী লোকেরা। মামলা-হামলা আর গ্রেপ্তার আতঙ্ক তো রয়েছেই। এ ছাড়া বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের হামলায় আহত আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা চিকিৎসার ক্ষেত্রেও বঞ্চনার শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ তাদের।

রাজধানীর শাহবাগ থানায় তথ্যপ্রযুক্তি আইনে (৫৭ ধারা) ছাত্রলীগকর্মীর দায়ের করা এক মামলায় গত ১ জুলাই মিরপুর ১৪ নম্বর ভাষানটেক বাজার, মজুমদার মোড় ১২ নম্বর বাসা থেকে রাশেদ খান ও মাহফুজকে একসঙ্গে তুলে নিয়ে যায় সাধারণ পোশাক পরা ডিবি পুলিশ- এমনটিই জানিয়েছিলেন আন্দোলনকারীরা।
রাশেদ খানের স্ত্রী রাবেয়া খানম বলেন, ‘মাহফুজ এবং রাশেদকে আমার সামনে থেকে একই বাইকে করে তুলে নিয়ে গেছে ডিবি পুলিশ। আমরা কারও কাছে কোনো যৌক্তিক বিচার পাইনি। একজন সাধারণ স্টুডেন্ট হয়েও সবার জন্য আন্দোলনে নেমেছিল; কিন্তু এখন তার ট্যাগ হয়ে গেল জামায়াত-শিবির। ও নাকি শিবির করে, জামায়াত-শিবিরের কাছ থেকে টাকা খেয়েছে। অথচ আমরা দিন আনি দিন খাই। আমরা টিউশনি করে পারিবারিক খরচ চালাতাম।’
তিনি বলেন, রাশেদ যেহেতু সবার জন্য আন্দোলন করেছে, তাই সবাই যেন রাশেদকে মুক্ত করার জন্য আন্দোলনে পাশে থাকে। রাশেদ একটা নিরপরাধ ছেলে।

রাশেদকে পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষ করে আরও ১০দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। কোটা সংস্কার আন্দোলনের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খানকে গ্রেফতারের আগের দিন তাকে গুম করে ফেলার হুমকি দেয়া হয়েছিল বলে অভিযোগ করেছে তার পরিবার। ওই দিন রাশেদের বাবাকে ফোন করে ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ বলেছিলেন, ‘আপনার ছেলেকে গুম করে ফেলা হবে।’

আইন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী তারেক আদনানকে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের একটি মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে গত ১০ এপ্রিল শাহবাগ থানায় দায়ের হওয়া তিনটি মামলায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনে হামলা, পুলিশের বিশেষ শাখার সদস্যের মোটরসাইকেল ভাঙচুর ও ওয়াকিটকি কেড়ে নেওয়ার অভিযোগে ওই মামলাগুলো দায়ের করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা, পুলিশের বিশেষ শাখার এক সহকারী উপপরিদর্শক ও শাহবাগ থানার পুলিশ।

এদিকে গত ২ জুলাই কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুরুকে গভীর রাতে রাজধানীর আনোয়ারা খান মডার্ন হাসপাতাল থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। অসুস্থ অবস্থাতেই তাকে বের করে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন নুরুল হক নুরু।
হাসপাতাল থেকে বের হয়ে সাংবাদিকদের নুরুল হক জানান, ‘পুলিশ তাকে প্রথমে গ্রেপ্তারের কথা বলে চলে যায়। এর কিছুক্ষণ পর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কোনো ধরনের নোটিশ ছাড়াই চিকিৎসা না দিয়ে আমাকে বের করে দেয়।’ এর আগে তার কাছ থেকে ফেসবুকের আইডি ও পাসওয়ার্ড নিয়ে যায় পুলিশ। বর্তমানে তিনি একটি বেসরকারি প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত রয়েছে বলে জানান কোটা সংস্কার আন্দোলনের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন।
গত ৩০ জুন শনিবার কোটা সংস্কার আন্দোলনের বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনের প্রাক্কালে মারধরের শিকার হন তিনি। মারধরে গুরুতর আহত হয়ে নুরুল হক নুরু ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হলে তাকে সেখানেও চিকিৎসা নিতে দেওয়া হয়নি। পরে ধানমণি-র বেসরকারি আনোয়ারা খান মডার্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন।

গত সোমবার বিকালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী ও বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক তরিকুল ইসলাম কোটা সংস্কার আন্দোলন করতে গিয়ে ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকের সামনের রাস্তায় ছাত্রলীগের রোষানলে পড়েন। তারা তরিকুলকে লাঠি আর হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে ডান পা ভেঙে দেওয়াসহ পুরো শরীর জখম করে। হামলাকারীদের কাউকে আটক করেনি পুলিম, েএমনকি মামলাও হয়নি!
তরিকুল রাজশাহীর একটি প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় আমাদের সময়কে বলেন, ‘ভাঙা পা। পুরো শরীরে জখম। প্রচ- ব্যথায় তিন-চারজন না ধরলে নড়াচড়া পর্যন্ত করতে পারি না। আমি মুমূর্ষু একজন রোগী; কিন্তু এই অবস্থায় সরকারি হাসপাতাল থেকে আমাকে (বৃহস্পতিবার বিকালে) রিলিজ দেওয়া হয়েছে। এই দুঃখের কথা কাকে বলব।
তরিকুল ভাঙা পা, মাথায় ৯ সেলাই আর পুরো শরীরে যখম নিয়ে প্রচ- ব্যথায় হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছিলেন। বলছিলেন, বাবার অভাবের সংসারে আরও দুই ভাইবোন অনার্সে পড়ালেখা করে। বাবা প্রায়ই বলতেন, কবে একটা চাকরি করবি। সান্তনা দিতাম আর বলতাম, আর কিছুদিন ধৈর্য ধরো বাবা। বিসিএসের পড়াশোনাও শুরু করেছিলাম। স্বপ্ন ছিল বিসিএস ক্যাডার হয়ে কৃষক বাবার দুঃখ ঘুচাব; কিন্তু স্বপ্নটা আজ দুঃস্বপ্ন। জীবনটাই অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়ে গেল।
এ বিষয়ে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. জামিলুর রহমান বলেন, ‘চিকিৎসকরা যেটা ভালো মনে করেছেন সেটাই করেছেন। ডাক্তারদের সঙ্গে আমি কথা বলেছি। এটি একটি ক্লিনিক্যাল বিষয়। সুতরাং তারা যেটা অ্যাডভাইস দিয়েছেন, রোগীর নিয়ম অনুযায়ী দিয়েছেন।’
তরিকুলের চিকিৎসার দায়িত্বে থাকা বেসরকারি হাসপাতালের ডা. সাঈদ আহম্মদ বাবু জানান, তার মাথায় ৯টি সেলাই রয়েছে। এ ছাড়া শরীরের বিভিন্ন স্থানে বিশেষ করে পিঠে ও কোমাড়ের নিচে বেশ কয়েকটি স্থানে মারাত্মক জখম রয়েছে; ডান পা তো ভেঙেই গেছে। তার শরীরে প্রচণ্ড ব্যথা, শারীরিক অবস্থাও খারাপ। একটু উন্নতি না হলে সার্জারি কিংবা অন্য কোনো কিছু করা যাচ্ছে না।’ তরিকুলকে গোপনে ঢাকায় এনে চিকিৎসা শুরু করা হয়েছে। তবে পুলিশী হয়রানীর ভয়ে হাসপাতালের নাম প্রকাশ করা হয়নি।

সার্বিক বিষয়ে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন বলেন, ‘আমরা আহতরা কেউ প্রকাশ্যে চিকিৎসা নিতে পারছি না। পরিচয় জানার পর আমাদের হাসপাতাল থেকে বের করে দেওয়া হয়। বৃহস্পতিবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের হামলায় আহত তরিকুলকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ থেকে চিকিৎসা না দিয়েই বের করে দেওয়া হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতদের মুক্তি ও প্রজ্ঞাপন জারি হওয়া পর্যন্ত তাদের আন্দোলন চলবে বলে তিনি জানান।

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী রাশেদ খানের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে মুখে কালো কাপড় বেঁধে মানববন্ধন করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাংকিং অ্যান্ড ইন্সুরেন্স বিভাগের শিক্ষার্থীরা। রাশেদ এ বিভাগের এমবিএ এর ছাত্র ও বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক। রোববার বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদে মানববন্ধন করে ব্যাংকিং অ্যান্ড ইন্স্যুরেন্স বিভাগের শিক্ষার্থীরা। মানববন্ধনে রাশেদসহ অন্য ছাত্রদের অবিলম্বে মুক্তি দাবি এবং অধিকার আদায়ের আন্দোলনে সন্ত্রাসীদের মতো হামলা চালিয়ে নির্বিচারে আটকের প্রতিবাদ জানানো হয়।

/ফেসবুক/ আমাদের সময়

Facebook Comments
Content Protection by DMCA.com

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.