সবার জামিন হয়, আমার হলো না কেনো- প্রশ্ন খালেদা জিয়ার?……আপনি হাসিনার শত্রু, তাই!

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া জানতে চান, কারো ৫ বছরের জেল হলে জামিনে বাধা থাকে না। অহরহ জামিন দিচ্ছে আদালত। তাহলে আমার ব্যাপারে এমন জটিলতা কেন হচ্ছে ? আমার জামিন নিয়ে টালবাহানা করা হচ্ছে কেনো ? আমার জামিন হলো না কেনো? হাইকোর্টও জামিন দিতে দেরি করেছে, আপিল ডিভিশনও স্থগিত করেছে কেন? আমি কোন অন্যায় করিনি। আমার বিরুদ্ধে যতগুলো মামলা করা হয়েছে সবগুলোই নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকারের নীলনকশা। পাতানো ষড়যন্ত্র। একটা মিথ্যা মামলায় আমাকে এভাবে কারাগারে রাখা হয়েছে।
রবিবার বিকেলে ৬ আইনজীবী পুরানো ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডের পরিত্যক্ত কারাগারে বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি তাদেরকে এ সব কথা বলেন।
এক ঘণ্টার বেশি সময় সাক্ষাৎ শেষে ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, আবদুর রেজাক খান, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, এ জে মোহাম্মদ আলী, সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতি জয়নুল আবেদীন ও সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন জানান, বেগম খালেদা জিয়া পিছিয়ে যাওয়ার নেত্রী নন। তার মনোবল সুদৃঢ় আছে। তার প্রবল আত্মবিশ্বাস রয়েছে। তিনি আইনী লড়াই চালিয়ে যেতে বলেছেন। সাবেক স্পিকার বিএনপির স্থায়ী কমিটির প্রবীণ সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দীন সরকার ইত্তেফাককে বলেন, ম্যাডাম প্রচণ্ড আত্মবিশ্বাসী লোক। তিনি ভালো আছেন, স্বাভাবিক আছেন। আমাদেরকে আস্থার সাথে কাজ চালিয়ে যেতে বলেছেন। তার মনোবল হাই লেভেলে রয়েছে। আমাদের ঐক্য সুদৃঢ় রয়েছে এটা জেনে তিনি খুশি হয়েছেন। আমরা আইনগত এবং মামলার বিষয়ে আলোচনা করেছি।
খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, ম্যাডাম আমাদের সাথে কোনো রাজনৈতিক আলোচনা করেননি। আমরা দেশনেত্রীকে আশ্বস্ত করেছি দেশে যদি আইনের শাসন থাকে তাহলে বর্তমান স্বৈরশাসক মিথ্যা সাজানো প্রতিহিংসামূলক মামলা দিয়ে আপনাকে কারাগারে আটকে রাখতে পারবে না, ইনশাআল্লাহ অবিলম্বে আপনি মুক্তি লাভ করবেন।
অ্যাডভোকেট জয়নাল আবদীন বলেন, সদ্য শেষ হওয়া সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি নির্বাচনে জয়লাভ করায় ম্যাডাম আমাদেরকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেন- আইনজীবীরা আদালতে যে ভূমিকা রেখেছেন তিনি খুব খুশি হয়েছেন। তিনি আরো বলেছেন বাংলাদেশে আইনজীবীরা হল বিবেক, এই আইনজীবীরা যেহেতু জাতীয়তাবাদী শক্তিকে বিজয়ী লাভ করেছেন এবং যদি আপনারা ঐক্যবদ্ধ থাকেন ভবিষ্যতে যেখানে যে নির্বাচন হবে ইনশাআল্লাহ সেই নির্বাচনে জাতীয়তাবাদী শক্তি বিজয় লাভ করবে।
তিনি বলেন, আমরা ম্যাডামকে আশ্বস্ত করেছি -ম্যাডাম আমরা আইনি লড়াই যেভাবে চালিয়ে যাচ্ছি আপনাকে যে যেভাবেই যেখান থেকে যে কথাই বলুক না কেন আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে সিনিয়র আইনজীবীরা আলাপ আলোচনা করে আইনের বিভিন্ন দিক বিচার বিশ্লেষণ করে মামলাগুলোতে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। ইনশাআল্লাহ মামলাগুলো আইনি লড়াইয়ের মাধ্যমে আমরা জয়লাভ করবো।
জয়নাল আবদীন বলেন, আমরা ম্যাডামকে আরো বলেছি সরকার রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে যেভাবেই আপনাকে কারাগারে রাখার চেষ্টা করুক না কেন আজকে যেহেতু আইনজীবীরা ঐক্যবদ্ধ তাই আমরা আশা করি আইনী লড়াইয়ের মাধ্যমে আপনাকে আমরা কারাগার থেকে বের করে নিয়ে আসতে পারবো।
তিনি বলেন, ম্যাডামের শারীরিক অবস্থা অনেক ভাল, সেই সঙ্গে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে জাতীয়তাবাদী প্যানলের বিজয়ে তার মন আরও চাঙ্গা হয়ে গেছে। কাজেই আমরা মনে করি যে যেভাই বলুক না কেন ম্যাডাম মনের দিক থেকে অনেক শক্তিশালী।
জয়নুল আবেদিন বলেন, আমরা আশা করি আইনি লড়াইয়ের মাধ্যমেই আপনাকে মুক্ত করবো।
বিদেশি আইনজীবী নিয়োগে নেত্রীর সাথে কোনো কথা হয়েছে কিনা সাংবাদিক এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিদেশি আইনজীবী নিয়োগ করা অপরাধ নয়। আমাদের ওপর যে ম্যাডামের আস্থা নেই এ কথা তিনি কখনো বলেন নাই। আজকেও তিনি আমাদেরকে বলেছেন আপনারা সিনিয়র আইনজীবী আপনাদের ওপর আমার যথেষ্ট আস্থা রয়েছে।
মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, বেগম খালেদা জিয়া আমাদের কাছে জানতে চেয়েছেন কারও সাজা হলে হাইকোর্ট জামিন দিয়ে দেয়, কিন্তু আমার জামিন হচ্ছে না কেন?। হাইকোর্টও (জামিন) দেরি করেছে, আপিল ডিভিশনও স্থগিত করেছে কেন? আমরা ম্যাডামকে এর কোনও উত্তর দিতে পারিনি।
এদিকে আইনজীবীরা বিকেল ৩টা ৪০ মিনিটে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে কারাগারে প্রবেশ করেন। গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার পাঁচ বছরের কারাদণ্ড হয়। এরপর পুরান ঢাকার পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারকে বিশেষ কারাগার ঘোষণা দিয়ে খালেদা জিয়াকে সেখানে রাখা হয়।
/ইত্তেফাক
Facebook Comments